কেন্দ্রীয় সরকারের কয়েক হাজার ক্লার্ক, জুনিঃ অ্যাসিস্ট্যান্ট, পোস্টাল/সর্টিং অ্যাসিঃ, ডেটা এন্ট্রি অপারেটর

SSC, SSC Constable,

পশ্চিমবঙ্গ সহ দেশের সমস্ত রাজ্যে ও দিল্লিতে অবস্থিত কেন্দ্রীয় সরকারের অফিসগুলিতে লোয়ার ডিভিশন ক্লার্ক/ জুনিয়র সেক্রেটারিয়েট অ্যাসিস্ট্যান্ট, পোস্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট/ সর্টিং অ্যাসিস্ট্যান্ট, ডেটা এন্ট্রি অপারেটর (ডিইও) ও ডেটা এন্ট্রি অপারেটর গ্রেড এ-র কয়েকহাজার সম্ভাব্য শূন্যপদে নিয়োগের জন্য দরখাস্ত নেওয়া হচ্ছে। শূন্যপদ সংগ্রহের কাজ চলছে, তবে শূন্যপদ হাজারছয়েক হতে পারে বলে তথ্যাভিজ্ঞ মহলের ধারণা। প্রার্থী বাছাই করবে স্টাফ সিলেকশন কমিশন, কম্বাইন্ড হায়ার সেকেন্ডারি লেভেল (১০+২) পরীক্ষা, ২০১৯-র মাধ্যমে। F.NO 3/6/2019-P&P-I (Vol.1).

বেতনক্রম: মূল বেতন লোয়ার ডিভিশন ক্লার্ক/ জুনিয়র সেক্রেটারিয়েট অ্যাসিস্ট্যান্ট পদের ক্ষেত্রে পে লেভেল টু অনুযায়ী ১৯৯০০-৬৩২০০ টাকা। বাকি পদগুলির ক্ষেত্রে পে লেভেল ফোর অনুযায়ী ২৫৫০০-৮১১০০ টাকা। সবক্ষেত্রেই মূল বেতনের সঙ্গে রয়েছে অন্যান্য ভাতা।

বয়সসীমা: ১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখের হিসেবে বয়স হতে হবে ১৮-২৭ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ২ জানুয়ারি ১৯৯৩ থেকে ১ জানুয়ারি ২০০২)। সংরক্ষিত শ্রেণির প্রার্থীরা (বিধবা/বিবাহবিচ্ছিন্না/আইনত পতিসঙ্গ বিচ্ছিন্না সহ) নিয়ম অনুযায়ী বয়সের ঊর্ধ্বসীমায় ছাড় পাবেন।

যোগ্যতা: লোয়ার ডিভিশন ক্লার্ক/ জুনিয়র সেক্রেটারিয়েট অ্যাসিস্ট্যান্ট, পোস্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট/ সর্টিং অ্যাসিস্ট্যান্ট, ডেটা এন্ট্রি অপারেটর (ডিইও-সিঅ্যান্ডএজি বাদে) ও ডেটা এন্ট্রি অপারেটর গ্রেড এ পদের ক্ষেত্রে যে-কোনো শাখায় দ্বাদশ শ্রেণি উত্তীর্ণ বা সমতুল। শুধুমাত্র ডেটা এন্ট্রি অপারেটর (ডিইও)— অফিস অব কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেল অব ইন্ডিয়া (সিঅ্যান্ডএজি)-র ক্ষেত্রে গণিত সহ বিজ্ঞান শাখায় দ্বাদশ শ্রেণি উত্তীর্ণ হতে হবে। শিক্ষগত যোগ্যতা সম্পূর্ণ হতে হবে ১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখের মধ্যে। যে এলাকায় নিয়োগ হবে সেই এলাকার স্থানীয় ভাষায় দক্ষতা থাকতে হবে, তা না হলে চাকরির স্থায়িত্ব আটকে যেতে পারে।

প্রার্থী বাছাই পদ্ধতি: লিখিত পরীক্ষা ও টাইপিং টেস্ট/ স্কিল টেস্টের মাধ্যমে প্রার্থী বাছাই করা হবে। লিখিত পরীক্ষা হবে দুটি পর্যায়ে। টিয়ার ওয়ান ও টিয়ার টু। লিখিত পরীক্ষায় সফল হলে টিয়ার থ্রি। টিয়ার ওয়ানে থাকবে জেনারেল ইন্টেলিজেন্স (২৫টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ (২৫টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), কোয়ান্টিটেটিভ অ্যাপ্টিটিউড (২৫টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর) ও জেনারেল অ্যাওয়্যারনেস (২৫টি প্রশ্ন, ৫০ নম্বর)। পরীক্ষার সময় ৬০ মিনিট। অবজেক্টিভ টাইপের প্রশ্ন হবে। ইংরেজি বাদে অন্যান্য বিষয়ের প্রশ্ন হবে ইংরেজি ও হিন্দিতে। নেগেটিভ মার্কিং আছে। এক-একটি ভুল উত্তরের জন্য ০.৫০ নম্বর করে কাটা হবে। টিয়ার টু ১০০ নম্বরের, ডেসক্রিপটিভ। টিয়ার থ্রি-তে স্কিল টেস্ট/ টাইপিং টেস্ট থাকবে, তাতে সফল হতেই হবে, যদিও তার কোনো নম্বর মেধাতালিকার জন্য বরাদ্দ হবে না। পরীক্ষার সিলেবাস সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে নিচের ওয়েবসাইট থেকে।

স্কিল টেস্ট (ডেটা এন্ট্রি অপারেটর পদের জন্য): এক ঘণ্টায় কম্পিউটারে ৮০০০ কি-ডিপ্রেশন স্পিড তুলতে হবে। এই পরীক্ষার জন্য ইংরেজিতে একটি রানিং স্ক্রিপ্ট ম্যাটার দেওয়া হবে। এই ছাপানো ম্যাটারে ২০০০-২২০০ স্ট্রোকের কম্পোজ থাকবে। প্রার্থীদের সেই মতোই টাইপ করতে হবে। সময় দেওয়া হবে ১৫ মিনিট। কতটা নির্ভুল হল সেটাও দেখা হবে।

টাইপিং টেস্ট (লোয়ার ডিভিশন ক্লার্ক/ জুনিয়র সেক্রেটারিয়েট অ্যাসিস্ট্যান্ট, পোস্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট/ সর্টিং অ্যাসস্ট্যিান্ট): কম্পিউটারে টাইপিং টেস্ট নেওয়া হবে। ইংরেজি টাইপিং-এ মিনিটে ৩৫ বা হিন্দি টাইপিং-এ ৩০ স্পিড (অর্থাৎ ইংরেজিতে ঘণ্টায় ১০৫০০ এবং হিন্দিতে ৯০০০ কি-ডিপ্রেশন) থাকা চাই। ১০ মিনিটের পরীক্ষা। দৃষ্টি প্রতিবন্ধীরা ৩০ মিনিট সময় পাবেন।

পরীক্ষাকেন্দ্র: পূর্ব ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলের পরীক্ষাকেন্দ্র এবং ব্র্যাকেটে কোড নম্বর (পূর্বাঞ্চলের আঞ্চলিক দপ্তরের ঠিকানা Regional Director (ER), Staff Selection Commission, 1st MSO Building, (8th Floor), 234/4, Acharya Jagadish Chandra Bose Road, Kolkata, West Bengal-700020, ওয়েবসাইট www.sscer.org): কলকাতা (৪৪১০), শিলিগুড়ি (৪৪১৫), হুগলি (৪৪১৮), পোর্ট ব্লেয়ার (৪৮০২), রাঁচি (৪২০৫), বালাসোর (৪৬০১), বহরমপুর-গঞ্জাম (৪৬০২), ভুবনেশ্বর (৪৬০৪), কটক (৪৬০৫), রৌরকেল্লা (৪৬১০), সম্বলপুর (৪৬০৯), গ্যাংটক (৪০০১), ঢেঙ্কানল (৪৬১১)।

গুয়াহাটি দিশপুর (৫১০৫), ডিব্রুগড় (৫১০২), জোরহাট (৫১০৭), শিলচর (৫১১১), ইটানগর (৫০০১), ইম্ফল (৫৫০১), শিলং (৫৪০১), আইজল (৫৭০১), কোহিমা (৫৩০২), চুড়াচাঁদপুর (৫৫০২), আগরতলা (৫৬০১), উখরুল (৫৫০৩)।

আবেদনের ফি: ১০০ টাকা। এসবিআই চালান/ নেট ব্যাঙ্কিং, যে-কোনো ব্যাঙ্কের ক্রেডিট কার্ড ও ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে আবেদনের ফি দেওয়া যাবে। মহিলা, তপশিলি, শারীরিক প্রতিবন্ধী ও প্রাক্তন সেনাকর্মীদের ফি দিতে হবে না।

আবেদনের পদ্ধতি: http://ssc.nic.in ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইন আবেদন করতে হবে। বৈধ ইমেল আইডি ও মোবাইল নম্বর থাকতে হবে। প্রথমে এককালীন রেজিস্ট্রেশন করতে হবে প্রাথমিক তথ্যাদি, ফটো ইত্যাদি দিয়ে, এই পদ্ধতি নিয়ে আমরা ইতিমধ্যে আলোচনা করেছি (http://jibikadishari.co.in/?p=6634)। আগে রেজিস্ট্রেশন করা থাকলে আবার তা করা দরকার নেই, আগের রেজিস্ট্রেশন নম্বর ও পাসওয়ার্ড দিয়েই কমসময়ের মধ্যে সরাসরি আবেদন করা যাবে। রেজিস্টড়েশনের পর অনলাইন আবেদন করা যাবে আগামী ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত।

শিক্ষাগত যোগ্যতার উল্লেখ দরখাস্তে করতে হবে এইসব কোড নম্বরে: ইন্টারমিডিয়েট/ উচ্চ মাধ্যমিক বা সমতুল পাশ হলে কোড নম্বর (০২), ডিপ্লোমা (০৪), বিএ (০৫), বিএ অনার্স (০৬), বিকম (০৭), বিকম অনার্স (০৮), বিএসসি (০৯), বিএসসি অনার্স (১০), বিএড (১১), এলএলবি (১২), বিই (১৩), বিটেক (১৪), বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার (১৬), বিসিএ (১৭), বিবিএ (১৮), গ্র্যাজুয়েশন ইস্যুড বাই ডিফেন্স ইন্ডিয়ান আর্মি, এয়ার ফোর্স ও নেভি (১৯), বিলিব (২০), বি ফার্ম (২১), আইসিডব্লুএ (২২), সিএ (২৩), পিজি ডিপ্লোমা (২৪), এমএ (২৫), এমকম (২৬), এমএসসি (২৭), এমএড (২৮), এলএলএম (২৯), এমই (৩০), এমটেক (৩১), এমএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং (৩২), এমসিএ (৩৩), এমবিএ (৩৪), কোম্পানি সেক্রেটারি (৩৯), অন্যান্য (৩৫)।

তপশিলি প্রভৃতি প্রার্থীদের সংরক্ষণের সুবিধার জন্য কোড নম্বর: তপশিলি (০১), ওবিসি (০২), শারীরিক প্রতিবন্ধী (০৩), শারীরিক প্রতিবন্ধী+ওবিসি (০৪), শারীরিক প্রতিবন্ধী+তপশিলি (০৫), প্রাক্তন সেনাকর্মী (০৬), বিধবা/ ডিভোর্সি/ আইনত পতিসঙ্গবিচ্ছিন্না মহিলারা আবার বিয়ে না করে থাকলে (১২), বিধবা/ ডিভোর্সি/ আইনত পতিসঙ্গবিচ্ছিন্না মহিলারা আবার বিয়ে না করে থাকলে+ তপশিলি (১৩)।

বাঁকুড়া জেলা আদালতে ১৯ গ্রুপ-সি গ্রুপ-ডি পদে নিয়োগ

Bengal Govt Job, Govt Job in West Bengal,

বাঁকুড়া জেলা আদালতে গ্রুপ-সি ও গ্রুপডির একাধিক পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে। যে কোন ভারতীয় নাগরিক নির্দিষ্ট যোগ্যতার ভিত্তিতে এই পদগুলির জন্য আবেদন করতে পারবেন। বিজ্ঞপ্তি নম্বর: 01, Dated 14th November, 2019

শূন্যপদ —

১) ইংলিশ স্টেনোগ্রাফার ৪ (অসংরক্ষিত ১,  অসংরক্ষিত ইসি ১, অসংরক্ষিত মেরিটোরিয়াস স্পোর্টসপার্সন ১, এসসি ইসি ১)

২) লোয়ার ডিভিশন ক্লার্ক ৩ (অসংরক্ষিত ১, এসসি ১, ওবিসি-এ ১)

৩) প্রসেস সার্ভার ২ (অসংরক্ষিত ১, এসসি ১)

৪) গ্রুপ ডি (পিওন/নাইট গার্ড/ফরাশ) ১০ (অসংরক্ষিত ২, অসংরক্ষিত ইসি ২, অসংরক্ষিত এক্স-সার্ভিসম্যান ১, এসসি ১, এসসি ইসি ১, এসটি ১, ওবিসি-এ ১, ওবিসি-বি ১)

বেতনক্রম —

ইংলিশ স্টেনোগ্রাফার: পে ব্যান্ড ৩ অনুযায়ী মূল বেতন ৭১০০-৩৭৬০০ + গ্রেড পে ৩৯০০ টাকা।

লোয়ার ডিভিশন ক্লার্ক: পে ব্যান্ড ২ অনুযায়ী  মূল বেতন ৫৪০০-২৫২০০ + গ্রেড পে ২৬০০ টাকা।

প্রসেস সার্ভার পে ব্যান্ড ২অন্যযায়ী মূল বেতন ৫৪০০-২৫২০০ + গ্রেড পে ২৩০০ টাকা।

গ্রুপ ডি: পে ব্যান্ড ১ অনুযায়ী মূল বেতন ৪৯০০-১৬২০০ + গ্রেড পে ১৭০০ টাকা।

বয়সসীমা — ১ জানুয়রি, ২০১৯ অনুযায়ী ১৮ থেকে ৪০ বছর। রাজ্যের সংরক্ষিত শ্রেণির জন্য নিয়ম অনুযায়ী বয়সের ছাড় রয়েছে।

শিক্ষাগত যোগ্যতা —

ইংলিশ স্টেনোগ্রাফার: স্বীকৃত  বোর্ড থেকে মাধ্যমিক বা সমতুল উত্তীর্ণ, স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে কম্পিউটার ট্রেনিং সার্টিফিকেট থাকতে হবে। সঙ্গে শর্টহ্যান্ডে ৮০ শব্দ প্রতি মিনিট এবং টাইপিংয়ে ৩০ শব্দ প্রতি মিনিট স্পিড থাকতে হবে।

লোয়ার ডিভিশন ক্লার্ক: স্বীকৃত  বোর্ড থেকে মাধ্যমিক বা সমতুল উত্তীর্ণ এবং স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে কম্পিউটার ট্রেনিং সার্টিফিকেট থাকতে হবে।

প্রসেস সার্ভার: স্বীকৃত  বোর্ড থেকে মাধ্যমিক বা সমতুল উত্তীর্ণ হতে হবে।

গ্রুপ ডি: স্বীকৃত বোর্ড বা মাদ্রাসা থেকে অষ্টম শ্রেণি উত্তীর্ণ।

আবেদন — যোগ্য প্রাথীদের অনলাইনে আবেবেন করতে হবে। একজন প্রার্থী একটি পদের জন্যেই আবেদন করতে পারবেন। অনলাইনে আবেদন করার শেষ তারিখ ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯। অনলাইনে আবেদন করার সময় ৩০ থেকে ৫০ কেবি মাপের পাসপোর্ট সাইজ ছবি এবং সর্বোচ্চ ২০ কেবি মাপে (২০০ x ১০০ পিক্সেল) স্বাক্ষর স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে। এছাড়াও প্রতিটি সর্বোচ্চ ১০০ কেবি মাপে (১২৫০ x ১৭৫০ পিক্সেল) প্রয়োজনীয় নথিসমূহ স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে।

আবেদন ফি  ইংলিশ স্টেনোগ্রাফার পদের জন্য এসসি/এসটি শ্রেণি ছাড়া অন্যান্য শ্রেণির জন্য ৩০০ টাকা, এসসি/এসটি শ্রেণির জন্য ২০০ টাকা, লোয়ার ডিভিশন ক্লার্ক পদের জন্য এসসি/এসটি শ্রেণি ছাড়া অন্যান্য শ্রেণির ৩০০ টাকা, এসসি/এসটি শ্রেণির জন্য ২০০ টাকা, প্রসেস সার্ভার পদের জন্য এসসি/এসটি শ্রেণি ছাড়া অন্যান্য শ্রেণির ৩০০ টাকা, এসসি/এসটি শ্রেণির জন্য ২০০ টাকা, গ্রুপ ডি পদের জন্য এসসি/এসটি শ্রেণি ছাড়া অন্যান্য শ্রেণির ২০০ টাকা, এসসি/এসটি শ্রেণির জন্য ১৫০ টাকা। অনলাইনে বা ই-চালানের মাধ্যমে অফলাইনে আবেদন ফি জমা দেওয়া যাবে।

আবেদন নিয়ে সমস্যা থাকলে অভিযোগ জানানোর ই-মেল্ আইডি:bankuracourtrectt2019@gmail.com

আবেদন করার জন্য লিঙ্ক: http://myapplonline.in.net/bankura/bankcourt2019.aspx#

বিজ্ঞপ্তি লিঙ্ক: https://www.calcuttahighcourt.gov.in/Notice-Files/district-recruiment-notice/2427

Mission Govt. Jobs with Prof. Samit Ray

Mission Govt. Jobs with Prof. Samit Ray

Watch Prof. Samit Ray discuss on the future of Government Jobs in the next 20 years.

Posted by RICE Education on Wednesday, November 13, 2019

 

সরকারি চাকরি নিয়ে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর। সরাসরি ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য সুচিন্তিত পরামর্শ দিচ্ছেন রাইস কর্ণধার প্রফেসর সমিত রায়।

BREAKING NEWS: ডব্লুবিসিএস ২০২০, আবেদন শুরু ৫ নভেম্বর থেকে

WBCS 2020, WBCS Exam, PSC Exam, PSC WBCS Exam

ওয়েস্ট বেঙ্গল সিভিল সার্ভিস (এগজিঃ) এটসেট্রা এগজামিনেশন ২০২০ -র জন্য আবেদন শুরু হবে ৫ নভেম্বর সকাল ১১টা থেকে, চলবে ২৫ নভেম্বর ২০১৯ তারিখ রাত ১২টা পর্যন্ত। বিজ্ঞপ্তি নম্বর: ২২/২০১৯। প্রার্থী বাছাই করবে ওয়েস্ট বেঙ্গল পাবলিক সার্ভিস কমিশন।

নিচের যোগ্যতার যে-কোনো ভারতীয়রা আবেদন করতে পারবেন। একটি আবেদনপত্রেই গ্রুপ এ, বি, সি ও ডি-র মধ্যে এক বা একাধিক পদের জন্য আবেদন করতে পারবেন যোগ্যতা ও বয়স মিললে, পদ-পছন্দের ক্রম উল্লেখ করে দিলেই হবে। প্রিলিমিনারি পরীক্ষা হবে ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে।

যোগ্যতা: কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে-কোনো শাখায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি। বাংলা লিখতে, পড়তে ও বলতে জানতে হবে (নেপালি ভাষীদের ক্ষেত্রে এই শর্ত প্রযোজ্য নয়)।

ওয়েস্ট বেঙ্গল পুলিশ সার্ভিস (গ্রুপ বি)-এর ক্ষেত্রে পুরুষ প্রার্থীদের উচ্চতা ন্যূনতম ১.৬৫ মিটার ও মহিলা প্রার্থীদের ১.৫০ মিটার হতে হবে। গোর্খা, গাড়োয়ালি ও অসমের উপজাতি ইত্যাদি প্রার্থীরা উচ্চতার ক্ষেত্রে নিয়ম অনুযায়ী ছাড় পাবেন।

বয়সসীমা: গ্রুপ এ ও সি-র ক্ষেত্রে বয়স হতে হবে ২১-৩৬ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ২ জানুয়ারি ১৯৮৪ থেকে ১ জানুয়ারি ১৯৯৯)। গ্রুপ বি (ওয়েস্ট বেঙ্গল পুলিশ সার্ভিস) ২০-৩৬ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ২ জানুয়ারি ১৯৮৪ থেকে ১ জানুয়ারি ২০০০)। গ্রুপ ডি-র জন্য বয়স ২১-৩৯ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ২ জানুয়ারি ১৯৮১ থেকে ১ জানুয়ারি ১৯৯৯)। সবক্ষেত্রেই ১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখের হিসেবে বয়স ধরা হয়েছে। ১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখের হিসেবে যাঁদের বয়স ২০ ও ২১ বছর (জন্মতারিখ ১ জানুয়ারি ১৯৯৯ এবং ১ জানুয়ারি ২০০০) তাঁরা কেবলমাত্র গ্রুপ বি পদের জন্য আবেদন করতে পারবেন। পশ্চিমবঙ্গের তপশিলি জাতি/ উপজাতি, ওবিসি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীরা নিয়ম অনুযায়ী বয়সের ঊর্ধ্বসীমায় ছাড় পাবেন।

বেতনক্রম অনুযায়ী গ্রুপ: গ্রুপ এ: পে ব্যান্ড ফোর এ অনুযায়ী ১৫৬০০-৪২০০০ টাকা, গ্রেড পে ৫৪০০ টাকা। সঙ্গে অন্যান্য ভাতা। গ্রুপ এ-র মধ্যে রয়েছে ১) ওয়েস্ট বেঙ্গল সিভিল সার্ভিস (এগজিকিউটিভ), ২) অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার অব রেভিনিউ ইন দ্য ওয়েস্ট বেঙ্গল রেভেনিউ সার্ভিস, ৩) ওয়েস্ট বেঙ্গল কো-অপারেটিভ সার্ভিস, ৪) ওয়েস্ট বেঙ্গল লেবার সার্ভিস, ৫) ওয়েস্ট বেঙ্গল ফুড অ্যান্ড সাপ্লাইজ সার্ভিস, ৬) ওয়েস্ট বেঙ্গল এমপ্লয়মেন্ট সার্ভিস (এমপ্লয়মেন্ট অফিসার টেকনিক্যাল পদ ছাড়া)।

গ্রুপ বি: ওয়েস্ট বেঙ্গল পুলিশ সার্ভিস। পে ব্যান্ড ফোর এ অনুযায়ী ১৫৬০০-৪২০০০ টাকা, গ্রেড পে ৫৪০০ টাকা। সঙ্গে অন্যান্য ভাতা।

গ্রুপ সি: পে ব্যান্ড ফোর অনুযায়ী ৯০০০-৪০৫০০ টাকা, গ্রেড পে ৪৮০০ টাকা। এই গ্রুপে আছে ১) সুপারিন্টেনডেন্ট, ডিস্ট্রিক্ট কারেকশনাল হোম/ ডেপুটি সুপারিন্টেডেন্ট, সেন্ট্রাল কারেকশনাল হোম, ২) জয়েন্ট ব্লক ডেভেলপমেন্ট অফিসার, ৩) ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর অব কনসিউমার অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড ফেয়ার বিজনেস প্র্যাক্টিসেস, ৪) ওয়েস্ট বেঙ্গল জুনিয়র সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সার্ভিস, ৫) ওয়েস্ট বেঙ্গল সাবর্ডিনেট ল্যান্ড রেভেনিউ সার্ভিস, ৬) অ্যাসিস্ট্যান্ট কমার্শিয়াল ট্যাক্স অফিসার, ৭) জয়েন্ট রেজিস্ট্রার (ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট কনসিউমার ডিসপুটস রেড্রেসাল কমিশন, কনসিউমার অ্যাফেয়ার্স দপ্তর), ৮) অ্যাসিস্ট্যান্ট ক্যানাল রেভেনিউ অফিসার (ইরিগেশন), ৯) চিফ কন্ট্রোলার অব কারেকশনাল সার্ভিসেস।

গ্রুপ ডি: পে ব্যান্ড থ্রি অনুযায়ী ৭১০০-৩৭৬০০ টাকা, গ্রেড পে ৩৯০০ টাকা। সঙ্গে অন্যান্য ভাতা। ১) ইনস্পেক্টর অব কো-অপারেটিভ সোসাইটি, ২) পঞ্চায়েত ডেভেলপমেন্ট অফিসার (পঞ্চায়েত অ্যান্ড রুরাল ডেভেলপমেন্ট দপ্তর), ৩) রিহ্যাবিলিটেশন অফিসার (রিফিউজি রিলিফ অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন দপ্তর)।

প্রার্থী বাছাই পদ্ধতি: প্রিলিমিনারি, মেইন পরীক্ষা ও পার্সোন্যালিটি টেস্টের মাধ্যমে প্রার্থী বাছাই করা হবে। লিখিত পরীক্ষা হবে দুটি ধাপে প্রিলিমিনারি ও মেইন। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় থাকবে ১. ইংলিশ কম্পোজিশন, ২. জেনারেল সায়েন্স, ৩. জাতীয় ও আন্তর্জাতিক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাবলির কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স, ৪. ভারতীয় ইতিহাস, ৫. ভারতের ভূগোল সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের বিশেষ গুরুত্ব, ৬. ইন্ডিয়ান পলিটি অ্যান্ড ইকোনমি, ৭. ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল মুভমেন্ট, ৮. জেনারেল মেন্টাল এবিলিটি। এর প্রত্যেকটিতে ২৫ নম্বর করে মোট ২০০ নম্বর থাকবে। প্রিলিমিনারিতে উত্তীর্ণ হলে মেইন পরীক্ষা দিতে পারবেন।

মেইন পরীক্ষায় ৬টি পেপার থাকবে। পেপার ওয়ানে বাংলা/ হিন্দি/ উর্দু/ নেপালি/ সাঁওতালি ভাষায় লেটার রাইটিং, রিপোর্ট রাইটিং, প্রেসি, কম্পোজিশন ও অনুবাদ। পেপার টুতে ইংলিশ লেটার রাইটিং, রিপোর্ট রাইটিং, প্রেসি, কম্পোজিশন, ইংরেজি থেকে বাংলা/ হিন্দি/ উর্দু/ নেপালি/ সাঁওতালি ভাষায় অনুবাদ। পেপার থ্রি জেনারেল স্টাডিজ-ওয়ান (ভারতীয় ইতিহাস ও ভূগোল পশ্চিমবঙ্গের বিশেষ গুরুত্ব সহ)। পেপার ফোরে জেনারেল স্টাডিজ-টু (সায়েন্স অ্যান্ড সায়েন্টিফিক অ্যান্ড টেকনোলজি অ্যাডভান্সমেন্ট, এনভায়রনমেন্ট, জেনারেল নলেজ এবং কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স)। পেপার ফাইভে ইন্ডিয়ান কনস্টিটিউশন অ্যান্ড ইকোনমি। পেপার সিক্সে অ্যারিথমেটিক ও রিজনিং। সিলেবাস সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে ওয়েবসাইট থেকে।

প্রিলিমিনারি পরীক্ষার কেন্দ্র (ব্র্যাকেটে কোড সহ): উত্তর কলকাতা (০১)। দক্ষিণ কলকাতা (০২)। বারুইপুর (০৩)। ডায়মন্ড হারবার (০৪)। ব্যারাকপুর (০৫)। বারাসাত (০৬)। হাওড়া (০৭)। বর্ধমান (০৮)। আসানসোল (০৯)। মেদিনীপুর (১০)। তমলুক (১১)। বাঁকুড়া (১২)। বহরমপুর (১৩)। মালদা (১৪)। জলপাইগুড়ি (১৫)। আলিপুরদুয়ার (১৬)। কোচবিহার (১৭)। শিলিগুড়ি (১৮)। কালিম্পং (১৯)। দার্জিলিং (২০)।

আবেদনের ফি: ২১০ টাকা। বাড়তি সার্ভিস চার্জ। পশ্চিমবঙ্গের তপশিলি জাতি/ উপজাতি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের ফি দিতে হবে না। অফলাইনে চালানের মাধ্যমে আবেদন ফি জমা দিলে চালান জেনারেট করতে হবে ২৫ নভেম্বর, ২০১৯ তারিখের মধ্যে।

আবেদনের পদ্ধতি: www.pscwbapplication.in  বা www.pscwbonline.gov.in  ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইন আবেদন করতে হবে। নিজের বৈধ ইমেল আইডি ও মোবাইল নম্বর থাকতে হবে। অনলাইন আবেদন করার আগে ‘ওয়ান টাইম এনরোলমেন্ট’ স্কিমে নাম নথিভুক্ত করতে হবে উপরোক্ত ওয়েবসাইটে, যাঁদের আগে এনরোলমেন্ট করা আছে তাঁদের পুনরায় করতে হবে না। ওয়ানটাইম এনরোলমেন্টের পদ্ধতি ইতিমধ্যে আলোচনা করা হয়েছে আমাদের পোর্টালেও (http://jibikadishari.co.in/?p=7237)

বিস্তারিত বিজ্ঞপ্তি লিঙ্ক: https://www.pscwbonline.gov.in/docs/2713287

 

 

 

 

 

 

WBCS 2020, WBCS Exam, PSC Exam, PSC WBCS Exam

BREAKING NEWS : রাজ্যে ২০০ ফার্মাসিস্ট কাম সেলসম্যান

PSC, WBPSC Jobs, PSC Pharmacist cum salesman

পাবলিক সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে রাজ্যে ফার্মাসিস্ট গ্রেড থ্রি/ফার্মাসিস্ট-কাম-সেলসম্যান গ্রেড থ্রি পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে।  বিজ্ঞপ্তি নম্বর – 21/2019

শূন্যপদ:  মোট ২০০টি শূন্যপদ রয়েছে। এর মধ্যে ১৯টি ওবিসি-এ, ১৩টি ওবিসি-বি, ৪৪টি এসএসসি, ১৩টি এসটি, ৬টি /মেরিটোরিয়াস স্পোর্টসপার্সন, ২ পিডব্লুডি (ব্লাইন্ডনেস / লো ভিশন),  ৩টি পিডব্লুডি (হিয়ারিং ইম্পেয়ারমেন্ট),  ৩টি পিডব্লুডি (লোকোমোটর ডিসেবিলিটি বা সেরিব্রাল পালসি) পদের জন্য সংরক্ষিত রয়েছে।

যোগ্যতা: ওয়েস্ট বেঙ্গল হায়ার সেকেন্ডারি কাউন্সিল অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান থেকে উচ্চমাধ্যমিক (ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, বায়োলজি/অঙ্ক সহ) বা সমতুল উত্তীর্ণ, সঙ্গে  রাজ্য সরকার স্বীকৃত ফার্মাসি ডিপ্লোমা কোর্স পাশ এবং ওয়েস্ট বেঙ্গল ফার্মাসি কাউন্সিলের “এ” ক্যাটেগরি রেজিস্টার্ড ফার্মাসিস্ট হতে হবে।

বয়সসীমা: ১ জানুয়ারি, ২০১৯ অনুযায়ী বয়সের সর্বোচ্চ সীমা ৩৯ বছর। রাজ্যের সংরক্ষিত শ্রেণির জন্য নিয়মমমফিক বয়সের ছাড় রয়েছে।

বেতনক্রম: মূল বেতন ৭১০০-৩৭৬০০ + গ্রেড পে ৩৬০০ এবং অন্যান্য অন্যান্য ভাতা।

আবেদন: আগামী ২১ নভেম্বর পর্যন্ত অনলাইন আবেদন গ্রহণ চলবে। অনলাইনে আবেদন ফি জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ২১ নভেম্বর, ২০১৯। অফলাইনে ইউবিআই চালানের মাধ্যমে আবেদন ফি জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ২২ নভেম্বর, ২০১৯। একজন প্রাথী একটি পদের জন্যেই আবেদন করতে পারবেন, অন্যথায় আবেদন বাতিল হবে। যারা পিএসসির ওয়েবসাইটে “One Time Registration” ইতিমধ্যে করে নিয়েছেন, তারা নিজের রেজিস্ট্রেশান আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে প্রোফাইলে ঢুকে আবেদন করতে পারবেন। বাকি প্রার্থীদের আগে ” One Time Registration ” করে তারপর অনলাইনে আবেদন করতে হবে।

আবেদন ফি: আবেদন ফি ১৬০ টাকা।  অনলাইনে দিলে এর সঙ্গে কনভেনিয়েন্স ফি ৫ টাকা ও ১৮% জিএসটি, অফলাইনে দিলে সার্ভিস চার্জ ২০ টাকা যুক্ত হবে। এই রাজ্যের এসসি/এসটি, পিডব্লুডি প্রাথীদের আবেদন ফি লাগবে না।

অনলাইন আবেদন লিঙ্ক: http://pscwbapplication.in

পিএসসির ওয়েবসাইটে অনলাইনে আবেদনের জন্য গাইডলাইন – https://www.pscwbonline.gov.in/apps/docs/how-to-apply.pdf

 

 

 

 

 

PSC, WBPSC Jobs, PSC Pharmacist cum salesman

তিন বাহিনীতে ট্রেনিং দিয়ে ৪১৮ পুরুষ-মহিলা গ্র্যাজুয়েট নিয়োগ

CDS Result

ভারতীয় স্থল, বিমান ও নৌবাহিনীতে ৪১৮ জন গ্র্যাজুয়েট তরুণ-তরুণীকে নিয়োগ করা হবে, বিভিন্ন কোর্সে ট্রেনিং দিয়ে। প্রার্থী বাছাই হবে ইউনিয়ন পাবলিক সার্ভিস কমিশনের কম্বাইন্ড ডিফেন্স সার্ভিসেস এগজামিনেশন (১) ২০২০-র মাধ্যমে (এসএসসি উইমেন (নন-টেকনিক্যাল কোর্স) সহ)। আবেদন করতে হবে অনলাইনে। নিয়োগ হবে নিচের কোর্সগুলিতে ট্রেনিং দিয়ে। এই এগজামিনেশন নোটিস নং- 3/2020.CDS-I, Dated 30.10.2019.

কোর্স অনুযায়ী শূন্যপদের বিন্যাস: ১) ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমি, দেরাদুন, ১৪৮তম কোর্স, জানুয়ারি ২০২১ কোর্স। শূন্যপদ: ১০০ (১৩টি পদ এনসিসি ‘সি’ সার্টিফিকেটধারী (আর্মি উইং)-দের জন্য)। (২) ইন্ডিয়ান ন্যাভাল অ্যাকাডেমি, অঝিমালা, জানুয়ারি ২০২১ কোর্স। শূন্যপদ ৪৫ (০৬টি পদ এনসিসি ‘সি’ সার্টিফিকেটধারী (ন্যাভাল উইং)-দের জন্য)। (৩) এয়ারফোর্স অ্যাকাডেমি, হায়দরাবাদ (প্রি-ফ্লাইং) ট্রেনিং কোর্স, জানুয়ারি ২০২১ কোর্স, নম্বর: ২০৯/ এফ (পি) কোর্স। শূন্যপদ ৩২ (৩টি পদ এনসিসি ‘সি’ সার্টিফিকেটধারী (এয়ার উইং)-দের জন্য)। (৪) অফিসার্স’ ট্রেনিং অ্যাকাডেমি, চেন্নাই, ১১১তম এসএসসি কোর্স (ফর মেন), এপ্রিল ২০২১। শূন্যপদ ২২৫ (১৭০ এসএসসি পুরুষ, ৫ জেএজি পুরুষ, ৫০টি পদ এনসিসি ‘সি’ সার্টিফিকেটধারীদের জন্য)। (৫) অফিসার্স’ ট্রেনিং অ্যাকাডেমি, চেন্নাই, ২৫তম এসএসসি উইমেন (নন-টেকনিক্যাল) কোর্স। এপ্রিল ২০২১ কোর্স। শূন্যপদ ১৬।

যোগ্যতা: ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমি ও অফিসার্স ট্রেনিং অ্যাকাডেমির জন্য স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্র্যাজুয়েশন কোর্স পাশ করে থাকতে হবে। ইন্ডিয়ান ন্যাভাল অ্যাকাডেমির জন্য ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি কোর্স পাশ হতে হবে। এয়ারফোর্স অ্যাকাডেমির জন্য যে-কোনো শাখায় গ্র্যাজুয়েট, তবে উচ্চমাধ্যমিকে ফিজিক্স এবং ম্যাথমেটিক্স নিয়ে পড়ে থাকতে হবে। অথবা ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক। যাঁরা চূড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষায় বসেছেন বা বসবেন তাঁরাও শর্তসাপেক্ষে আবেদন করতে পারবেন, তবে আর্মি/ নেভি/ এয়ারফোর্স প্রথম পছন্দ হিসাবে বেছে থাকলে গ্র্যাজুয়েট হবার অন্তত প্রভিশনাল সার্টিফিকেট দাখিল করতে হবে এসএসবির ইন্টারভিউয়ের প্রথম দিন বা নির্দেশিত সময়ে।

মহিলারা (অবিবাহিত) শুধুমাত্র অফিসার্স’ ট্রেনিং অ্যাকাডেমি, চেন্নাই-২৫তম এসএসসি উইমেন (নন-টেকনিক্যাল) কোর্সের ক্ষেত্রেই আবেদন করতে পারবেন। বাকি সবই অবিবাহিত (কেবল অফিসার্স ট্রেনিং অ্যাকাডেমির শর্ট সার্ভিস কোর্সের ক্ষেত্রে বিবাহিত/ অবিবাহিত) পুরুষদের জন্য। বিবাহবিচ্ছিন্ন/ বিপত্নীকরা অবিবাহিত বলে গণ্য হবেন না।

বয়সসীমা: ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমি ও ইন্ডিয়ান ন্যাভাল অ্যাকাডেমির জন্য প্রার্থীর জন্মতারিখ ২ জানুয়ারি ১৯৯৭-এর আগে হবে না বা ১ জানুয়ারি ২০০২-এর পরে হলে আবেদন করা যাবে না। এয়ারফোর্স অ্যাকাডেমির জন্য প্রার্থীর জন্মতারিখ ১ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে ২০ থেকে ২৪ বছরের মধ্যে হতে হবে। অর্থাৎ জন্মতারিখ ২ জানুয়ারি ১৯৯৭-এর আগে হবে না বা ১ জানুয়ারি ২০০১-এর পরে হবে না। সিপিএল থাকলে বয়সের ঊর্ধ্বসীমা ২৬ বছর।

৪ ও ৫ নম্বরের অফিসার্স ট্রেনিং অ্যাকাডেমির জন্য জন্মতারিখ ২ জানুয়ারি ১৯৯৬-এর আগে হবে না বা ১ জানুয়ারি ২০০২-এর পরে হবে না।

শারীরিক মাপজোক: পুরুষ প্রার্থীদের ক্ষেত্রে উচ্চতা থাকতে হবে অন্তত ১৫৭.৫ সেমি (নেভির জন্য ন্যূনতম ১৫৭ সেমি, এয়ারফোর্সের জন্য ন্যূনতম ১৬২.৫ সেমি)। মহিলাদের ক্ষেত্রে উচ্চতা থাকতে হবে ১৫২ সেমি। পার্বত্য অঞ্চলের বাসিন্দারা উচ্চতার ক্ষেত্রে ছাড় পাবেন। বয়স ও উচ্চতার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ওজন থাকতে হবে। যেমন, ১৫৭ সেন্টিমিটার উচ্চতা হলে ১৮ বছর বয়সের ক্ষেত্রে ওজন থাকতে হবে ৪৭ কেজি, ২০ বছর বয়সের ক্ষেত্রে ৪৯ কেজি, ২২ বছর বয়সের ক্ষেত্রে ৫০ কেজি। মহিলাদের ক্ষেত্রেও একইভাবে ১৪৮ সেমি উচ্চতায় ওজন হতে হবে ২০ বছর বয়স হলে ৩৯ কেজি, ২৫ বছর হলে ৪১ কেজি, ৩০ বছর হলে ৪৩ কেজি। পুরো মাপকাঠির চার্ট পাবেন ইউপিএসসির এই পরীক্ষা সংক্রান্ত ওয়েবপেজে। নেভির ক্ষেত্রে দৃষ্টিশক্তি থাকতে হবে সাধারণ চোখে ৬/১২। চশমা সহ ৬/৬। মায়োপিয়া বা হাইপারমেট্রোপিয়া থাকলে তা যথাক্রমে -১.৫ ও + ১.৫-এর মধ্যে হতে হবে। বাইনোকুলার ভিজন-থ্রি থাকতে হবে। এয়ারফোর্সের ক্ষেত্রে পায়ের মাপ হতে হবে ন্যূনতম ৯৯ সেমি। সর্বোচ্চ ১২০ সেমি। উরুর মাপ ৬৪ সেমির বেশি হওয়া চলবে না। বসে উচ্চতা থাকতে হবে  ন্যূনতম ৮১.৫ ও সর্বোচ্চ ৯৬ সেমি। দূরের দৃষ্টিশক্তি থাকতে হবে একচোখে ৬/ ৬ অপর চোখে ৬/৯। হাইপারমেট্রোপিয়া থাকলে সংশোধিত দৃষ্টিশক্তি ৬/ ৬ হলেও চলবে। কানে শোনার ক্ষমতা, বুকের এক্স-রে ইত্যাদি পরীক্ষাও করা হবে। হাইপারমেট্রোপিয়া থাকলে ২.০ ডি এসপিএইচ বেশি হওয়া চলবে না। রঙ চেনার ক্ষমতা থাকতে হবে সিপি-১। মায়োপিয়া থাকলে -০.৫-এর মধ্যে থাকতে হবে।

শারীরিক সক্ষমতা: শারীরিক সক্ষমতার পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য প্রতিদিন ২ কিমি থেকে ৪ কিমি ১৫ মিনিটে দৌড়নো, একবারে অন্তত ২০টি করে পুশআপ ও সিটআপ, অন্তত ৮টি করে চিনআপ, রোপ ক্লাইম্বিং ৩ থেকে ৪ মিটার— এগুলি করা যেতে পারে।

শারীরিক সক্ষমতা, যোগ্যতা, আসন সংরক্ষণ, ডিউটি ও অন্যান্য শর্তাবলি বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে www.upsconline.nic.in ওয়েবসাইটে।

বেতনক্রম: র‍্যাঙ্ক অনুযায়ী বেতনক্রম বিভিন্ন রকম। যেমন লেফটেন্যান্ট র‍্যাঙ্ক থেকে শুরু করে ক্রমশ পদোন্নতির ফলে মেজর জেনারেল পর্যন্ত র‍্যাঙ্কে ওঠা যায়। লেফটেন্যান্ট থেকে মেজরের ক্ষেত্রে পে ব্যান্ড-৩ অনুযায়ী মূল বেতন হবে ৫৬১০০-১৭৭৫০০ টাকা। পদোন্নতির সঙ্গে-সঙ্গে বেতন বাড়বে। বিস্তারিত জানতে পারবেন নিচের ওয়েবসাইটে।

প্রার্থী বাছাই: প্রার্থী নির্বাচন করা হবে লিখিত পরীক্ষা ও ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে। লিখিত পরীক্ষা হবে ২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে। ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমি, ইন্ডিয়ান ন্যাভাল অ্যাকাডেমি ও এয়ারফোর্স অ্যাকাডেমির জন্য পরীক্ষা হবে ৩০০ নম্বরের। সময় ৬ ঘণ্টা। ইংরেজি, জেনারেল নলেজ ও এলিমেন্টারি ম্যাথমেটিক্স এই তিনটি বিষয়ে প্রতিটিতে ১০০ নম্বরের প্রশ্ন থাকবে। অফিসার্স ট্রেনিং অ্যাকাডেমির ক্ষেত্রে পরীক্ষা হবে ২০০ নম্বরের। সময় ৪ ঘণ্টা। ইংরেজি, জেনারেল নলেজ বিষয়ে প্রতিটিতে ১০০ নম্বরের প্রশ্ন থাকবে। প্রশ্ন হবে অবজেক্টিভ টাইপের। জেনারেল নলেজ ও এলিমেন্টারি ম্যাথমেটিক্স বিষয়ে প্রশ্ন থাকবে ইংরেজি ও হিন্দি ভাষায়। নেগেটিভ মার্কিং থাকবে। সফলদের ইন্টারভিউয়ে ডাকা হবে। পরীক্ষার ৩ সপ্তাহ আগে ই-কার্ড পাওয়া যাবে ওয়েবসাইটে, ডাউনলোড করে নিতে হবে।

আবেদনের ফি: ২০০ টাকা। এসবিআই-এর যে-কোনো শাখায় ক্যাশে/ এসবিআইয়ের ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ড/ নেট ব্যাঙ্কিংয়ের মাধ্যমে ফি দেওয়া যাবে। মহিলা ও তপশিলিদের কোনো ফি দিতে হবে না। ক্যাশে টাকা দিলে চালান ডাউনলোড করতে হবে ১১ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে।

আবেদনের পদ্ধতি: আবেদন করতে হবে শুধুমাত্র অনলাইনে। www.upsconline.nic.in ওয়েবসাইটে গিয়ে আবেদনপত্র পূরণ করতে পারবেন। প্রথমে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। আবেদন করার আগে নিজের ছবি ও সই জেপেগ ফরম্যাটে স্ক্যান করে নেবেন। সই ও ছবির মাপ ৪০ কেবি-র বেশি বা ৭ কেবির কম যেন না হয়, সই ৫ কেবির কম নয়। তবে তার আগে চালান ডাউনলোড করে ব্যাঙ্কে টাকা জমা দিতে হবে। সঠিক ভাবে পূরণ করা ফর্ম সাবমিট করার আগে ভালো করে দেখে নেবেন। ইমেল মারফত জরুরি তথ্য পাঠানো হবে। তাই একটি বৈধ ইমেল আইডি থাকতে হবে। অনলাইনে ফর্ম সাবমিট করার পর রেজিস্ট্রেশন স্লিপের সিস্টেম জেনারেটেড প্রিন্ট-আউট নিয়ে নেবেন। তবে তা কোথাও পাঠাতে হবে না, পরে প্রয়োজন হবে। আবেদন করতে পারবেন আগামী ১৯ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। অন্যান্য প্রাসঙ্গিক তথ্য জানা যাবে উপরোক্ত ওয়েবসাইটে।

 

 

 

কেন্দ্রে কয়েকহাজার ইনস্পেক্টর, অ্যাসিস্ট্যান্ট, অডিটর নিয়োগের আবেদন

SSC CGL Picture

পশ্চিমবঙ্গ সহ বিভিন্ন রাজ্যে ও নয়াদিল্লিতে ছড়িয়ে থাকা কেন্দ্রীয় সরকারের সমস্ত অফিস ও মন্ত্রকের কয়েক হাজার গ্রুপ বি ও সি-র শূন্যপদের জন্য প্রার্থী বাছাই করা হবে স্টাফ সিলেকশন কমিশনের কম্বাইন্ড গ্র্যাজুয়েট লেভেল এগজামিনেশন, ২০১৯-র মাধ্যমে। শূন্যপদের সংখ্যা এখনও জানা যায়নি, তবে হাজার দশেক পদে নিয়োগ হয়ে থাকে। নিচের যোগ্যতার যে-কোনো ভারতীয়রা আবেদন করতে পারবেন। অনলাইন আবেদন করা যাবে আগামী ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত। এফ নম্বর- 3/4/2019-P&P-I (Vol.-I).

বেতনক্রম: মোট ৫টি গ্রুপে ভাগ করা হয়েছে। গ্রুপ-১: পে লেভেল ৮ অনুযায়ী ৪৭৬০০-১৫১১০০ টাকা, গ্রুপ-২: পে লেভেল ৭ অনুযায়ী ৪৪৯০০-১৪২৪০০ টাকা্‌, গ্রুপ-৩: পে লেভেল ৬ অনুযায়ী ৩৫৪০০-১১২৪০০ টাকা্‌, গ্রুপ-৪: পে লেভেল ৫ অনুযায়ী ২৯২০০-৯২৩০০ টাকা, গ্রুপ-৫: পে লেভেল ৪ অনুযায়ী ২৫৫০০-৮১১০০ টাকা, সঙ্গে পদমর্যাদা অনুযায়ী গ্রেড পে ও অন্যান্য ভাতা।

কী-কী পদ/সার্ভিসে চাকরি:

নিয়োগ হবে এইসব পদে (মোট ৩টি ভাগ বা গ্রুপে):

(গ্রুপ-) (ক্রমিক সংখ্যা ১) অ্যাসিস্ট্যান্ট অডিট অফিসার (ইন্ডিয়ান অডিট অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস ডিপার্টমেন্ট আন্ডার সিঅ্যান্ডএজি, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ২) অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাকাউন্টস অফিসার (ইন্ডিয়ান অডিট অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস ডিপাটর্মেন্ট সিঅ্যান্ডএজি, গ্রুপ বি),

(গ্রুপ-) (ক্রমিক সংখ্যা ৩) অ্যাসিস্ট্যান্ট সেকশন অফিসার (সেন্ট্রাল সেক্রেটারিয়েট সাভির্স, গ্রুপ বি),(ক্রমিক সংখ্যা ৪) অ্যাসিস্ট্যান্ট সেকশন অফিসার (ইন্টেলিজেন্স ব্যুরো, গ্রুপ বি),(ক্রমিক সংখ্যা ৫) অ্যাসিস্ট্যান্ট সেকশন অফিসার (মিনিস্ট্রি অব রেলওয়েজ, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ৬) অ্যাসিস্ট্যান্ট সেকশন অফিসার (মিনিস্ট্রি অব এক্সটারনাল অ্যাফেয়ার্স, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ৭) অ্যাসিস্ট্যান্ট সেকশন অফিসার (এএফএইচকিউ, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ৮) অ্যাসিস্ট্যান্ট (আদার মিনিস্ট্রিজ/ ডিপার্টমেন্টস/অর্গানাইজেশনস, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ৯) অ্যাসিস্ট্যান্ট (আদার মিনিস্ট্রিজ/ ডিপার্টমেন্টস/ অর্গানাইজেশন, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ১০) অ্যাসিস্ট্যান্ট সেকশন অফিসার (আদার মিনিস্ট্রিজ/ ডিপার্টমেন্টস/অর্গানাইজেশনস, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ১১) ইনস্পেক্টর অব ইনকাম ট্যাক্স (সিবিডিটি, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ১২) ইনস্পেক্টর সেন্ট্রাল এক্সাইজ (সিবিআইসি, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ১৩) ইনস্পেক্টর প্রিভেন্টিভ অফিসার (সিবিআইসি, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ১৪) ইনস্পেক্টর এগজামিনার (সিবিআইসি, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ১৫) অ্যাসিস্ট্যান্ট এনফোর্সমেন্ট অফিসার (ডিরেক্টরেট অব এনফোর্সমেন্ট, ডিপার্টমেন্ট অব রেভেনিউ, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ১৬) সাব ইনস্পেক্টর (সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ১৭) ইনস্পেক্টর (ডিপার্টমেন্ট অব পোস্ট), (ক্রমিক সংখ্যা ১৮) ইনস্পেক্টর (সেন্ট্রাল ব্যুরো অব নার্কোটিক্স, গ্রুপ বি),

(গ্রুপ-) (ক্রমিক সংখ্যা ১৯) অ্যাসিস্ট্যান্ট (আদার মিনিস্ট্রিজ/ ডিপার্টমেন্টস/অর্গানাইজেশনস, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ২০) অ্যাসিস্ট্যান্ট/ সুপারিন্টেনডেন্ট (আদার মিনিস্ট্রিজ/ ডিপার্টমেন্টস/অর্গানাইজেশনস, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ২১) ডিভিশনাল অ্যাকাউন্ট্যান্ট (অফিসেস আন্ডার সিঅ্যান্ডএজি, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ২২) সাব-ইনস্পেক্টর (ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি, গ্রুপ বি), (ক্রমিক সংখ্যা ২৩) জুনিয়র স্ট্যাটিস্টিক্যাল অফিসার (এম/ও স্ট্যাটিস্টিক্স অ্যান্ড প্রোগ্রাম ইমপ্লিমেন্টেশন, গ্রুপ বি),

(ক্রমিক সংখ্যা ২৪) স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনভেস্টিগেটর গ্রেড টু (রেজিস্টারার জেনারেল অব ইন্ডিয়া, গ্রুপ বি),

(গ্রুপ-) (ক্রমিক সংখ্যা ২৫) অডিটর (অফিস সিঅ্যান্ডএজি, গ্রুপ সি), (ক্রমিক সংখ্যা ২৬) অডিটর (আদার মিনিস্ট্রি/ডিপার্টমেন্টস), (ক্রমিক সংখ্যা ২৭) অডিটর (অফিস সিঅ্যান্ডএজি, গ্রুপ সি), (ক্রমিক সংখ্যা ২৮) অ্যাকাউন্ট্যান্ট (অফিসেস আন্ডার সিঅ্যান্ডএজি, গ্রুপ সি), (ক্রমিক সংখ্যা ২৯) অ্যাকাউন্ট্যান্ট/ জুনিয়র অ্যাকাউন্ট্যান্ট (আদার মিনিস্ট্রি/ ডিপার্টমেন্টস, গ্রুপ সি),

(গ্রুপ-) (ক্রমিক সংখ্যা ৩০) সিনিয়র সেক্রেটারিয়েট অ্যাসিস্ট্যান্ট/ আপার ডিভিশন ক্লার্ক (কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন দপ্তর/ সিএসসিএস ক্যাডার ছাড়া অন্যান্য মিনিস্ট্রি, গ্রুপ সি), (ক্রমিক সংখ্যা ৩১)ট্যাক্স অ্যাসিস্ট্যান্ট (সিবিডিটি, গ্রুপ সি),

(ক্রমিক সংখ্যা ৩২) ট্যাক্স অ্যাসিস্ট্যান্ট (সিবিআইসি, গ্রুপ সি), (ক্রমিক সংখ্যা ৩৩) সাব-ইনস্পেক্টর (সেন্ট্রাল ব্যুরো অব নারকোটিক্স, গ্রুপ সি), (ক্রমিক সংখ্যা ৩৪) আপার ডিভিশন ক্লার্ক (ডিরেক্টরেট জেনাঃ বর্ডার রোড অর্গানাইজেশন, শুধুমাত্র পুরুষ প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন, গ্রুপ সি)।

শিক্ষাগত যোগ্যতাঅ্যাসিস্ট্যান্ট অডিট অফিসার/ অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাকাউন্টস অফিসার পদের ক্ষেত্রে কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় বা ইনস্টিটিউট থেকে ব্যাচেলর ডিগ্রি। বাঞ্ছনীয় যোগ্যতা: চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট অথবা কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্ট অথবা কোম্পোনি সেক্রেটারিশিপ অথবা কমার্স/ বিজনেস স্টাডিজ/ বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (ফিনান্স) অথবা বিজনেস ইকোনমিক্সে মাস্টার ডিগ্রি।

জুনিয়র স্ট্যাটিস্টিক্যাল অফিসার পদের ক্ষেত্রে কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় বা ইনস্টিটিউট থেকে যে-কোনো বিষয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রি (অন্তত দ্বাদশ শ্রেণি স্তরে ম্যাথমেটিক্সে অন্তত ৬০ শতাংশ নম্বর থাকতে হবে) অথবা কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় বা ইনস্টিটিউট থেকে স্ট্যাটিস্টিক্স একটি বিষয় সহ যে-কোনো বিষয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রি।

স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনভেস্টিগেটর গ্রেড টু: যে কোনো বিষয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রি সঙ্গে স্ট্যাটিস্টিক্স একটি বিষয় হিসেবে থাকতে হবে। গ্র্যাজুয়েশনে তিন বছরই স্ট্যাটিস্টিক্স বিষয় হিসেবে থাকতে হবে।

বাকি পদগুলির ক্ষেত্রে কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় বা ইনস্টিটিউট থেকে ব্যাচেলর ডিগ্রি। তবে অ্যাসিস্ট্যান্ট সেকশন অফিসার (সিএসএস), অ্যাসিস্ট্যান্ট সেকশন অফিসার (এমইএ), অ্যাসিস্ট্যান্ট সিরিয়াস ফ্রড ইনভেস্টিগেশন অফস ও অ্যাসিস্ট্যান্ট (জিএসআই) পদের জন্য কম্পিউটার দক্ষতা থাকা দরকার।

অন্তিম বছরের ছাত্রছাত্রীরাও শর্তসাপেক্ষে আবেদন করতে পারবেন।

সবক্ষেত্রেই শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পূর্ণ হতে হবে ১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখের মধ্যে।

বয়সসীমা (১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে): () গ্রুপের পদগুলির জন্য ৩০-এর বেশি নয় (জন্মতারিখ ২-১-১৯৯০ থেকে ১-১-২০০২), () গ্রুপের ৩, ৫, ৬, ৭, ৯ নং (২০-৩০ বছর, অর্থাৎ জন্মতারিখ ২-১-১৯৯০ থেকে ১-১-২০০০), ৮, ১৭ (১৮-৩০), ৪, ১০, ১১, ১২, ১৩, ১৪, ১৫, ১৬, ১৮ (৩০-এর বেশি যেন না হয়)। () গ্রুপের জন্য ১৯, ২০, ২১, ২২, ২৪   (৩০-এর বেশি নয়, জন্মতারিখ ২-১-১৯৯০ থেকে ১-১-২০০২), ২৩ (বয়সের ঊর্ধ্বসীমা ৩২ বছর, জন্মতারিখ ২-১-১৯৮৮ থেকে ১-১-২০০২)। () গ্রুপের পদগুলির জন্য ১৮-২৭ বছর (জন্মতারিখ ২-১-১৯৯৩ থেকে ১-১-২০০২) । () গ্রুপের পদগুলির জন্যও ১৮-২৭ বছর (জন্মতারিখ ২-১-১৯৯৩ থেকে ১-১-২০০২)। তপশিলি, ওবিসি, প্রাক্তন সমরকর্মী, বিধবা/বিবাহবিচ্ছিন্না/আইনত পতিসঙ্গ বিচ্ছিন্না প্রভৃতি প্রার্থীরা নিয়মানুযায়ী বয়সে ছাড় পাবেন।

দৈহিক মাপজোকইনস্পেক্টর (সেন্ট্রাল এক্সাইজ/এগজামিনার/প্রিভেন্টিভ অফিসার) পদের ক্ষেত্রে। পুরুষ প্রার্থীদের উচ্চতা হতে হবে অন্তত ১৫৭.৫ সেমি। বুকের ছাতি ৮১ সেমি এবং ৫ সেমি পর্যন্ত ফোলাতে পারতে হবে। গাড়োয়ালি, অসমিয়া, গোর্খা এবং তপশিলি উপজাতি প্রার্থীদের ক্ষেত্রে উচ্চতায় ৫ সেমি পর্যন্ত ছাড় দেওয়া হবে। মহিলা প্রার্থীদের ক্ষেত্রে উচ্চতা ১৫২ সেমি এবং ওজন ৪৮ কেজি। গাড়োয়ালি, অসমিয়া, গোর্খা এবং তপশিলি উপজাতি প্রার্থীরা উচ্চতা এবং ওজনে যথাক্রমে ২.৫ সেমি এবং ২ কেজি ছাড় পাবেন। ফিজিক্যাল টেস্টে পুরুষ প্রার্থীদের ১৫ মিনিটে ১৬০০ মিটার হাঁটতে হবে এবং ৩০ মিনিটে ৮ কিলোমিটার সাইক্লিং করতে হবে। মহিলা প্রার্থীদের ২০ মিনিটে ১ কিলোমিটার হাঁটতে হবে। ২৫ মিনিটে ৩ কিলোমিটার সাইক্লিং করতে হবে।

সাব ইনস্পেক্টর (সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন) পদের ক্ষেত্রে পুরুষ প্রার্থীদের উচ্চতা হতে হবে অন্তত ১৬৫ সেন্টিমিটার, পুরুষ প্রার্থীদের বুকের ছাতি ৭৬ সেন্টিমিটার। মহিলা প্রার্থীদের উচ্চতা হতে হবে ১৫০ সেন্টিমিটার। পার্বত্য অঞ্চল ও উপজাতিভুক্ত পুরুষ ও মহিলারা উচ্চতার ক্ষেত্রে ৫ সেন্টিমিটার পর্যন্ত ছাড় পাবেন। দৃষ্টিশক্তি: চশমা পরে বা চশমা ছাড়া দূরের দৃষ্টি একচোখে ৬/৬, অন্য চোখে ৬/৯। কাছের দৃষ্টি এক চোখে ০.৬ এবং অন্যচোখে ০.৮।

সাব–ইনস্পেক্টর ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি পদের ক্ষেত্রে পুরুষ প্রার্থীদের উচ্চতা ১৭০ সেন্টিমিটার। বুকের ছাতি ৫ সেমি ফোলানোর ক্ষমতা সহ ৭৬ সেন্টিমিটার। মহিলা প্রার্থীদের উচ্চতা দরকার ১৫০ সেন্টিমিটার। পার্বত্য অঞ্চল ও উপজাতিভুক্ত পুরুষ ও মহিলা প্রার্থীরা উচ্চতার ক্ষেত্রে ৫ সেন্টিমিটার ছাড় পাবেন। চশমা সহ ও চশমা ছাড়া দূরের দৃষ্টি হতে হবে একচোখে ৬/৬ এবং অন্যচোখে ৬/৯। কাছের দৃষ্টি একচোখে ০.৬ এবং অন্য চোখে ০.৮।

প্রার্থী বাছাই পদ্ধতি: কম্পিউটার ভিত্তিক লিখিত পরীক্ষা, কম্পিউটার প্রফিশিয়েন্সি টেস্ট/ স্কিল টেস্ট (যে পদে যেটি প্রযোজ্য) এবং নথি যাচাইয়ের মধ্যে দিয়ে প্রার্থী বাছাই করবে স্টাফ সিলেকশন কমিশন। টিয়ার ওয়ান পরীক্ষা হবে ২ মার্চ ২০২০ থেকে ১১ মার্চ ২০২০ পর্যন্ত, ব্যাচে-ব্যাচে ভাগ করে। তাতে নেগেটিভ মার্কিং থাকবে ০.৫ হারে অর্থাৎ প্রতি ২টি ভুলের জন্য ১ নম্বর করে। টিয়ার টু (৪টি পেপার। নেগেটিভ মার্কিং পেপার-১, ৩ ও ৪-এর জন্য ০.৫ হারে এবং পেপার-২-তে (ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যান্ড কম্প্রিহেনশন) ০.২৫ হারে। টিয়ার থ্রি (৬০ মিনিটে ১০০ নম্বরের ইংরেজি বা হিন্দিতে এসে/লেটার/প্রেসি/অ্যাপ্লিকেশন ইত্যদি লেখা। যে-কোনো একটি ভাষায়। কিছুটা ইংরেজিতে কিছুটা হিন্দিতে লিখলে বাতিল) পরীক্ষা হবে ২২ জুন ২০২০ থেকে ২৫ জুন ২০২০ পর্যন্ত। পরীক্ষাকেন্দ্রের তালিকা ও কোড নম্বর পাবেন নিচের ওয়েবসাইটে।

আবেদন ফি: আবেদন ফি ১০০ টাকা। ভিম ইউপিআই, নেট ব্যাঙ্কিং, ভিসা, মাস্টার কার্ড, ম্যাস্ট্রো, রুপে ক্রেডিট/ ডেবিট কার্ড বা ডাউনলোড করা চালানে এসবিআইয়ের যে-কোনো শাখায় নগদে ফি দেওয়া যাবে। মহিলা, তপশিলি জাতি, তপশিলি উপজাতি, শারীরিক প্রতিবন্ধী ও প্রাক্তন সেনাকর্মীদের আবেদনের ফি দিতে হবে না।

আবেদনের পদ্ধতিhttps://ssc.nic.in/ ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইন আবেদন করতে হবে।

https://ssc.nic.in/SSCFileServer/PortalManagement/UploadedFiles/notice_CGLE_22102019.pdf লিঙ্কে ক্লিক করে বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে পাওয়া যাবে। নিজস্ব বৈধ ইমেল আইডি ও ফোন নম্বর থাকতে হবে। অনলাইন আবেদন করা যাবে আগামী ২৫ নভেম্বর বিকাল ৫টা পর্যন্ত। দরখাস্তে শিক্ষাগত যোগ্যতার কোড, পাশ করা বিষয়ের কোড, কাস্ট ইত্যাদির কোড লিখতে হবে স্টাফ সিলেকশন কমিশনের দেওয়া তালিকা অনুযায়ী, তালিকা পাওয়া যাবে কমিশনের ওয়েবসাইটেই। বয়সসীমা, বেতনক্রম, পরীক্ষার প্রার্থী বাছাই পদ্ধতি ও অন্যান্য প্রাসঙ্গিক বিষয় বিস্তারিত জানা যাবে উপরোক্ত ওয়েবসাইটে।

গুরুত্বপূর্ণ তারিখ: অনলাইন আবেদন করা যাবে আগামী ২৫ নভেম্বর বিকাল ৫টা পর্যন্ত। কম্পিউটার ভি্ত্তিক অবজেক্টিভ টাইপের পরীক্ষা টিয়ার ওয়ান আগামী ২ মার্চ থেকে ১১ মার্চ ব্যাচে-ব্যাচে ভাগ করে।টিয়ার টু (অবজেক্টিভ), টিয়ার থ্রি (ডেসক্রিপটিভ) পরীক্ষা হবে আগামী ২২ জুন থেকে ২৫ জুন পর্যন্ত।

পরীক্ষার সিলেবাসhttp://jibikadishari.co.in/?p=13234 

আবেদনের জরুরি তথ্য ও সতর্কতাhttp://jibikadishari.co.in/?p=13221

স্টাফ সিলেকশনের পরীক্ষায় অসদুপায় ১৯ রকম, শাস্তি রকম: http://jibikadishari.co.in/?p=5446

স্টাফ সিলেকশন কমিশনের আবেদনে কোন বিষয়ে ও কোন যোগ্যতার কী কোড:

http://jibikadishari.co.in/?p=8299

BREAKING NEWS : আপার প্রাইমারি মেধা তালিকা ৪ অক্টোবর

ssc, ssc tet, ssc Upper Primary Tet, Upper Primary Result

হাইকোর্টের নির্দেশের পর মেধাতালিকা প্রকাশ করতে চলেছে রাজ্য স্কুল সার্ভিস কমিশন। জীবিকা দিশারীতে আগেই জানানো হয়েছিল, এ সপ্তাহের মধ্যেই মেধা তালিকা প্রকাশ করে দেওয়া হবে (http://jibikadishari.co.in/?p=13060)। সেইমতো আগামী ৪ অক্টোবর শুক্রবার আপার প্রাইমারি স্তরে (শারীরশিক্ষা/কর্মশিক্ষা বাদে) সহশিক্ষক/শিক্ষিকা নিয়োগের প্রথম এসএলএসটি, ২০১৬ পরীক্ষার মেধা তালিকা প্রকাশ করা হবে।

স্কুল সার্ভিস কমিশন একটি বিজ্ঞপ্তি (Memo No. 1041/6723/CSSC/ESTT/2019, Dated 02.10.2019)  দিয়ে জানিয়েছে, আগামী ৪ অক্টোবর মেধা তালিকা প্রকাশের পর তালিকা নিয়ে কারও কোনো অভিযোগ থাকলে তা ৫ অক্টোবর, ২০১৯ থেকে গ্রহণ করা হবে। ফলাফল বা মেধা তালিকায় কোনো গরমিল বা অসঙ্গতি, যেমন আপনার চেয়ে কম নম্বর পেয়ে কেউ আপনার ওপরে স্থান পেয়ে থাকলে তা জানাতে পারবেন ৫ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত।। এর মধ্যে শনিবার, রবিবার এমনকি সমস্ত ছুটির দিনগুলিতেও কাজ চলবে। এরকম ক্ষেত্রে ওই দিনগুলিতে সকাল ১০টা  থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত সেন্ট্রাল স্কুল সার্ভিস কমিশনের অফিসে (ঠিকানা: ACHARYA SADAN, 11 & 11/1, Block-EE, Salt Lake, Kolkata-700091) প্রার্থীদের গিয়ে অভিযোগ করতে বলা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তির লিঙ্ক: http://www.westbengalssc.com/sscorg/wbssc/download/notice/Upper%20Primary%20Notification%20dt%2002.10.2019.pdf

 

 

 

ssc, ssc tet, ssc Upper Primary Tet, Upper Primary Result

আর্মিতে সরাসরি নিয়োগ র‍্যালি কোলাঘাটে

Army, Army Recruitment, Army Recruitment Registration

সোলজার জেনারেল ডিউটি, সোলজার টেকনিক্যাল, সোলজার টেকনিক্যাল (অ্যাভিয়েশন/ অ্যামিউনিশন এগজামিনার), সোলজার নার্সিং অ্যাসিস্ট্যান্ট/ নার্সিং অ্যাসিস্ট্যান্ট (ভেটেরিনারি), সেপয় ফার্মা, সোলজার ক্লার্ক/ স্টোর কিপার টেকনিক্যাল/ ইনভেন্টরি ম্যানেজমেন্ট, সোলজার ট্রেডসম্যান পদের জন্য সরাসরি র‍্যালির মাধ্যমে কয়েকশো অবিবাহিত তরুণকে নিয়োগ করবে ভারতীয় সেনাবাহিনী। কলকাতা আর্মি রিক্রুটিং অফিসের মাধ্যমে। কেবলমাত্র পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, হাওড়া, কলকাতা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার প্রার্থীরাই এই র‍্যালিতে অংশ নিতে পারবেন। এই নিয়োগ র‍্যালি হবে কোলাঘাট থার্মাল পাওয়ার স্টেশন রিক্রিয়েশন ক্লাব গ্রাউন্ডে। র‍্যালি চলবে আগামী ২২ নভেম্বর থেকে ২ ডিসেম্বর পর্যন্ত। তার আগে অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ও আবেদন করতে হবে আগামী ৬ নভেম্বর পর্যন্ত।

প্রয়োজনীয় শিক্ষাগত যোগ্যতাসোলজার জেনারেল ডিউটি: ন্যূনতম ৪৫ শতাংশ নম্বর নিয়ে দশম শ্রেণি পাশ (প্রতিটি বিষয়ে ৩৩ শতাংশ করে নম্বর থাকতে হবে)। সিবিএসই/ অন্যান্য বোর্ডের গ্রেডিং সিস্টেমের ক্ষেত্রে প্রতিটি বিষয়ে ‘ডি’ গ্রেড এবং মোট ‘সি২’ গ্রেড থাকতে হবে। বয়সসীমা: ১-১০-২০১৯ তারিখে সাড়ে সতেরো থেকে একুশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৮ থেকে ১ এপ্রিল ২০০২)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

 

সোলজার টেকনিক্যাল: শিক্ষাগত যোগ্যতা: বিজ্ঞান শাখায় ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, অঙ্ক এবং ইংরেজি অন্যতম বিষয় হিসেবে নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক পাশ প্রার্থীরা মোট অন্তত ৫০ শতাংশ প্রতিটি বিষয়ে অন্তত ৪০ শতাংশ করে নম্বর থাকলে আবেদন করতে পারেন। বয়সসীমা: ১-১০-২০১৯ তারিখে সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৬ থেকে ১ এপ্রিল ২০০২)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

 

সোলজার টেকনিক্যাল (অ্যাভিয়েশন/অ্যামিউনিশন এগজামিনার): শিক্ষাগত যোগ্যতা: বিজ্ঞান শাখায় ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, অঙ্ক এবং ইংরেজি অন্যতম বিষয় হিসেবে নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক পাশ প্রার্থীরা মোট অন্তত ৫০ শতাংশ ও প্রতিটি বিষয়ে অন্তত ৪০ শতাংশ করে নম্বর থাকলে আবেদন করতে পারেন। বয়সসীমা: ১-১০-২০১৯ তারিখে সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৬ থেকে ১ এপ্রিল ২০০২)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

 

সোলজার নার্সিং অ্যাসিস্ট্যান্টনার্সিং অ্যাসিস্ট্যান্ট ভেটেরিনারি: শিক্ষগত যোগ্যতা: ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, ইংরাজি ও বায়োলজি বিষয় নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক পাশ ছেলেরা মোট ৫০ শতাংশ আর প্রতিটি বিষয়ে অন্তত ৪০ শতাংশ নম্বর থাকলে আবেদন করতে পারবেন। বয়সসীমা: ১-১০-২০১৯ তারিখে সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৬ থেকে ১ এপ্রিল ২০০২)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

 

সেপয় ফার্মা: ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, ইংরাজি ও বায়োলজি বিষয় নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক পাশ, ন্যূনতম ৫৫ শতাংশ নম্বর নিয়ে ডি ফার্মা এবং স্টেট ফার্মাসিউটিক্যাল কাউন্সিল/ ফার্মাসি কাউন্সিল অব ইন্ডিয়ায় নাম নথিভুক্ত অথবা ন্যূনতম ৫০ শতাংশ নম্বর নিয়ে বি ফার্মা পাশ এবং স্টেট ফার্মাসিউটিক্যাল কাউন্সিল/ ফার্মাসি কাউন্সিল অব ইন্ডিয়ায় নাম নথিভুক্ত। বয়সসীমা: ১-১০-২০১৯ তারিখে উনিশ থেকে পঁচিশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৪ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর ২০০০)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

 

সোলজার ক্লার্কস্টোর কিপার টেকনিক্যাল/ ইনভেন্টরি ম্যানেজমেন্ট: শিক্ষাগত যোগ্যতা: সায়েন্স/ আর্টস/ কমার্স শাখায় মোটের উপর অন্তত ৬০ শতাংশ নম্বর নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক পাশ হতে হবে। প্রতিটি বিষয়ে অন্তত ৫০ শতাংশ নম্বর থাকা চাই। উচ্চমাধ্যমিকে প্রতিটি বিষয়ে ৫০ শতাংশ নম্বর সহ ইংরেজি সঙ্গে অঙ্ক/ অ্যাকাউন্ট্যান্সি/ বুক কিপিংয়ের মধ্যে যে-কোনো একটি আবশ্যিক বিষয় হিসেবে থাকতে হবে। বয়সসীমা: ১-১০-২০১৯ তারিখে সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৬ থেকে ১ এপ্রিল ২০০২)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬২ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

 

সোলজার ট্রেডসম্যান (দশম শ্রেণি পাশ): শিক্ষাগত যোগ্যতা: দশম শ্রেণি পাশ এবং প্রতিটি বিষয়ে অন্তত ৩৩ শতাংশ নম্বর থাকতে হবে। বয়সসীমা: ১-১০-২০১৯ তারিখে সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৬ থেকে ১ এপ্রিল ২০০২)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৪৮ কেজি।

 

সোলজার ট্রেডসম্যান (অষ্টম শ্রেণি পাশ): শিক্ষাগত যোগ্যতা: প্রতি বিষয়ে অন্তত ৩৩% নম্বর সহ দশম শ্রেণি পাশ (মেস কিপার, হাউস কিপিং ছাড়া, তাদের ক্ষেত্রে অষ্টম শ্রেণি পাশ)। বয়সসীমা: ১-১০-২০১৯ তারিখে সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৬ থেকে ১ এপ্রিল ২০০২)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৪৮ কেজি।

 

ওপরের সবক্ষেত্রেই গোর্খাদের জন্য ন্যূনতম উচ্চতা হতে হবে ১৫৭ সেমি, ছাতি ৫ সেমি ফোলানোর ক্ষমতা সহ ৭৭ সেমি, ওজন ৪৮ কেজি। উপজাতিদের যথাক্রমে ১৬২, ৭৭, ৪৮। জেনারেল ডিউটিতে কার্সিয়ং মহকুমা ও কালিম্পং জেলার পার্বত্য উপজাতিদের জন্য যথাক্রমে ১৬০ সেমি, ৭৭ সেমি, ৪৮ কেজি (সোলজার টেকনিঃ/নার্সিং অ্যাসিস্ট্যান্ট/ নার্সিং অ্যাসিস্ট্যান্ট ভেটেরিনারির ক্ষেত্রে যথাক্রমে ১৫৭, ৭৭, ৪৮)।

র‍্যালি কেন্দ্রের ঠিকানা: কোলাঘাট থার্মাল পাওয়ার স্টেশন রিক্রিয়েশন ক্লাব গ্রাউন্ড, কোলাঘাট, পূর্ব মেদিনীপুর। র‍্যালিতে অংশ নেবার জন্য অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ও আবেদন করা যাবে আগামী ৬ নভেম্বর পর্যন্ত। তারপর অ্যাডমিট কার্ড পেলে নির্ধারিত তারিখে র‍্যালিতে অংশ নেওয়া যাবে। র‍্যালি চলবে আগামী আগামী ২২ নভেম্বর থেকে ২ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

শারীরিক সক্ষমতার পরীক্ষা: দৈহিক সক্ষমতার পরীক্ষায় কৃতিত্বের ভিত্তিতে দুটি ভাগ হবে। গ্রুপ-ওয়ানের মধ্যে পড়বেন তাঁরাই যাঁরা ১.৬ কিমি দৌড় ৫ মিনিট ৩০ সেকেন্ড সম্পূর্ণ করে ৬০ নম্বর, ১০টা বিম পুল-আপ দিয়ে ৪০ নম্বর বা ৯টা দিয়ে ৩৩ নম্বর বা ৮টা দিয়ে ২৭ নম্বর পাবেন এবং জিগজ্যাগ ব্যালান্স ও ৯ ফুট লংজাম্পে (খাত) সফল হবেন। গ্রুপ-টুতে পড়বেন তাঁরা যাঁরা ১.৬ কিমি ৫ মিনিট ৩১ সেকেন্ড থেকে ৫ মিনিট ৪৫ সেকেন্ডে দৌড়ে ৪৮ নম্বর পাবেন, ৭টা বিম পুল-আপ দিয়ে ২১ নম্বর বা ৬টা দিয়ে ১৬ নম্বর পাবেন এবং জিগজ্যাগ ব্যালান্স ও ৯ ফুট লংজাম্পে (খাত) সফল হবেন।

দৈহিক সক্ষমতার পরীক্ষায় সফল হলে মেডিকেল টেস্ট ও লিখিত পরীক্ষা। লিখিত পরীক্ষায় নেগেটিভ মার্কিং থাকবে।

আবেদনের পদ্ধতি: র‍্যালিতে যোগ দেওয়ার জন্য www.joinindianarmy.nic.in ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইনে নাম লেখাতে অর্থাৎ রেজিস্টার করতে হবে নিজের ইমেল আইডি, মোবাইল নম্বর ইত্যাদি দিয়ে। রেজিস্ট্রেশনের ব্যাপারে ধারণার জন্য আমাদের আলোচনা দেখে নিতে পারেন (http://jibikadishari.co.in/?p=8122)। এ-ফোর মাপের কাগজে অ্যাডমিট কার্ডের ২টি প্রিন্ট-আউট নিয়ে রাখতে হবে লেজার প্রিন্টারে, মাপ বদল না করে। আপনার জন্য নির্ধারিত তারিখে র‍্যালিতে যেতে পারবেন, অ্যাডমিটকার্ডে বলা তারিখ ও সময়ে। কাছাকাছি এলাকায় ৩-৪ দিন থাকতে হতে পারে, সেভাবে তৈরি হয়ে যাবেন। র‍্যালিতে সফল হলে সেখানেই লিখিত পরীক্ষার অ্যাডমিট কার্ড দেওয়া হবে।

প্রার্থী বাছাইয়ের দিন যেসব নথির মূল এবং প্রত্যয়িত (গেজেটেড অফিসার বা সমতুল কাউকে দিয়ে) প্রতিলিপি (দুটি করে কপি) সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে তা হল: ১) মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক, গ্র্যাজুয়েশন ও উচ্চতর কোনো যোগ্যতা থাকলে তার রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট, অ্যাডমিট কার্ড, রেজাল্ট ও বোর্ড সার্টিফিকেট। প্রভিশনাল/অনলাইন সার্টিফিকেট হলে কালিতে সই করে সংশিত হতে হবে। ওপেন স্কুলিং থেকে পাশ হলে বিইও/ডিইও-র প্রতিস্বাক্ষরিত স্কুললিভিং সার্টিফিকেট দরকার। ২) গ্রাম প্রধান, সরপঞ্চ বা চেয়ারম্যানের অফিস থেকে গোল সীলমোহরের ছাপ দেওয়া ক্যারেক্টার সার্টিফিকেট (৬ মাসের পুরানো হলে চলবে না)। সার্টিফিকেটে ছবি থাকতে হবে এবং প্রার্থীর ২১ বছরের কম হলে ‘হি ইজ আনম্যারেড’ কথাটিও সার্টিফিকেটে লেখা থাকা চাই। স্কুল/কলেজের থেকেও ক্যারেক্টার সার্টিফিকেট হতে হবে শেষ পড়া স্কুল/কলেজের প্রধানের ইস্যু করা। ৩) মাধ্যমিক অনুত্তীর্ণদের ক্ষেত্রে ডিস্ট্রিক্ট ইনস্পেক্টর অব স্কুলস ও ডিস্ট্রিক্ট এডুকেশন অফিসারকে দিয়ে কাউন্টার-সাইন করানো ‘স্কুল লিভিং’ বা ‘স্কুল ট্রান্সফার সার্টিফিকেট’ দরকার। ৪) জেলাশাসক বা তহশিলদারের ইস্যু করা বাসিন্দা (ডোমিসাইল)/ নেটিভিটি সার্টিফিকেট (প্রার্থীর ছবি সহ)। ৫) তপশিলি উপজাতি প্রার্থীদের ক্ষেত্রে জেলাশাসক, এসডিএম, এসডিওর দেওয়া কাস্ট সার্টিফিকেট, তাতে ধর্মের (শিখ/হিন্দু/মুসলিম/খ্রিস্টান) উল্লেখ না থাকলে তহশিলদার/এসডিএমের ইস্যু করা ধর্ম সার্টিফিকেটও লাগবে বলা হয়েছে। ৬) নির্ধারিত বয়ানে/ অ্যাফিডেভিটে বৈবাহিক বিষয়ে সার্টিফিকেট। ৭) তিন মাসের মধ্যে তোলা ২০ কপি পাসপোর্ট মাপের রঙিন ছবি, প্রত্যয়িত না করা। ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড সাদা হতে হবে। কম্পিউটার ফটো অথবা ডিজিট্যাল ফটো বা ফটোশপ গ্রহণযোগ্য হবে না। ৮) এনসিসির ‘এ’, ‘বি’ ও ‘সি’ সার্টিফিকেট যদি থাকে। ৯) রাজ্য বা জাতীয় পর্যায়ের খেলাধূলায় গত ২ বছরের মধ্যে প্রথম বা দ্বিতীয় স্থানাধীকারী হলে তার সাটিফিকেট। ১০) প্রাক্তন সমরকর্মীদের ডিসচার্জ সার্টিফিকেট। ডিফেন্স সিকিউরিটি কোরের ক্ষেত্রে রি-এনরোলমেন্টের জন্যও ওপরের মতো পাসপোর্ট মাপের ২০ কপি ফটো। প্রতিটি সার্টিফিকেটের দুটি করে ফটোকপি সঙ্গে রাখতে হবে।

সঙ্গে কী-কী নিতে হবে তা নিচের ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপনে বুঝে নিতে পারেন। র‍্যালি সংক্রান্ত কোনো জিজ্ঞাসা থাকলে ফোন করতে পারেন ০৩৩-২২২৩৭১৫০ নম্বরে। অন্যান্য প্রাসঙ্গিক তথ্য জানা যাবে ও সার্টিফিকেটের বয়ান সহ পুরো বিজ্ঞপ্তি দেখা যাবে এই লিঙ্কে:

http://www.joinindianarmy.nic.in/writereaddata/Portal/BRAVO_NotificationPDF/RO__HQ__Rally_Notification_22_Nov_to_02_Dec_2019_at_Kolaghat.pdf

কেন্দ্রীয় সরকারের কয়েকশো স্টেনো নিয়োগ

PSC Stenographer Type Test

সারা দেশে এবং দিল্লিতে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন দপ্তর এবং অফিসে বেশ কয়েকশো শূন্যপদে স্টেনোগ্রাফার গ্রেড সি (গ্রুপ বি নন-গেজেটেড) ও গ্রেড ডি (গ্রুপ সি নন-গেজেটেড) নিয়োগ করা হবে। বিজ্ঞপ্তি নম্বর F.No.3/5/2019-(P&P-II)। প্রার্থী বাছাই করবে স্টাফ সিলেকশন কমিশন। শূন্যপদের সংখ্যা এখনও চূড়ান্ত হয়নি। নিচের যোগ্যতার যে-কোনো ভারতীয় পুরুষ ও মহিলারা আবেদন করতে পারবেন। গ্রেড সি বা গ্রেড ডি যে-কোনো পদের জন্য বা দুই পদের জন্যই আবেদন করতে পারবেন।

নিয়োগস্থল: গ্রেড সি পদের অধিকাংশ নিয়োগ হবে দিল্লিতে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রক/ দপ্তরে। গ্রেড ডি পদের নিয়োগ হবে দিল্লি সহ দেশের যে-কোনো রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রক/ দপ্তরে।

শিক্ষাগত যোগ্যতা: ১-১-২০২০-র মধ্যে কোনো স্বীকৃত বোর্ড বা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চমাধ্যমিক বা সমতুল পাশ। লিখিত পরীক্ষায় সফল হলে স্টেনোগ্রাফির স্কিলটেস্টেও সফল হতেই হবে, তাই স্টেনোগ্রাফির দক্ষতাও চাই। তবে লিখিত পরীক্ষার ফল বেরিয়ে স্কিল টেস্ট হতে যেহেতু এখনও অনেক সময় আছে, তাই যাঁরা স্টেনোগ্রাফি (ইংরেজি বা হিন্দি) জানেন না তাঁরাও ইতিমধ্যে শিখে নিতে পারবেন এমন সম্ভাবনা থাকলে আবেদন করতে পারেন। চাকরিতে নিযুক্ত হলে একভাষার স্টেনোগ্রাফি জানা প্রার্থীদের অন্যভাষার শর্টহ্যান্ডও শিখে নিতে হবে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে।

বয়সসীমা: সেটেনোগ্রাফার গ্রেড সি-র জন্য বয়স হতে হবে ১৮-৩০ বছরের মধ্যে। স্টেনোগ্রাফার গ্রেড ডি-এর জন্য ১৮-২৭ বছরের মধ্যে। সবক্ষেত্রেই বয়সের শর্ত সম্পূর্ণ হতে হবে ১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখের মধ্যে। তপশিলি জাতি/ উপজাতি (কোড নং ০১), ওবিসি (কোড নং ০২) এবং শারীরিক প্রতিবন্ধী (কোড নং ০৩) প্রার্থীরা বয়সের ঊর্ধ্বসীমায় যথাক্রমে ৫ বছর, ৩ বছর এবং ১০ বছর ছাড় পাবেন। এছাড়াও ওবিসি (প্রতিবন্ধী)(কোড নং ০৪) ও  তপশিলি জাতি/ উপজাতি (প্রতিবন্ধী)(কোড নং ০৫) প্রার্থীদের বয়সের ঊর্ধ্বসীমায় যথাক্রমে ১৩ বছর এবং ১৫ বছর ছাড় দেওয়া হবে। প্রাক্তন সেনাকর্মীদের ক্ষেত্রে (কোড নং ০৬) প্রকৃত বয়স থেকে মিলিটারি সার্ভিসের মেয়াদকাল + ৩ বছর বাদ দিয়ে যা দাঁড়াবে তত বছর ছাড় পাবেন। শত্রুভাবাপন্ন দেশের বৈরিতায় বা শান্তিবিঘ্নিত এলাকায় পঙ্গু হয়ে চাকরি হারানো প্রাক্তন সেনাকর্মীরা (কোড নং ০৮) ৩ বছর এবং ওই রকম তপশিলি প্রাক্তন সেনাকর্মীদের (কোড নং ০৯) ক্ষেত্রে ৮ বছর ছাড় দেওয়া হবে। কেবল গ্রুপসি পদের ক্ষেত্রে  কেন্দ্রীয় অসামরিক কর্মীরা অন্তত ৩ বছর নিয়মিত পদে অবিচ্ছিন্নভাবে কর্মরত (কোড নং ১০) হলে এবং একইভাবে তপশিলি (কোড নং ১১)  হলে যথাক্রমে ৪০ ও ৪৫ বছর বয়স পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। বিধবা/ বিবাহবিচ্ছিন্না/আইনত পতিসঙ্গবিচ্ছিন্না মহিলারা (কোড নং ১২) আবার বিয়ে না করে থাকলে এবং বয়স ৩৫ বা তার মধ্যে হলে আবেদন করতে পারবেন (তপশিলি হলে (কোড নং ১৩) যথাক্রমে ৪০ বছর এবং ৩৮ বছর বয়স পর্যন্ত আবেদন করা যাবে)। সামরিক সার্ভিস ক্লার্ক ও ছাঁটাই হওয়া জনগণনা কর্মীদের জন্য শর্তসাপেক্ষে বয়সের ছাড় আছে, নিচের লিঙ্কে বিজ্ঞপ্তিতে দেখা যাবে। প্রাক্তন সমরকর্মীদের পুত্র-কন্যা ও পোষ্যরা বয়সের ছাড়ের সুবিধা পাবেন না।

প্রার্থী বাছাই পদ্ধতি: লিখিত পরীক্ষা এবং স্কিল টেস্টের মাধ্যমে প্রার্থী বাছাই করা হবে। কম্পিউটার ভিত্তিক লিখিত পরীক্ষা হবে ৫ থেকে ৭ মে ২০২০, বিভিন্ন ব্যাচে ভাগ করে। কম্পিউটারভিত্তিক ওই ২ ঘণ্টার পরীক্ষায় থাকবে অবজেক্টিভ মাল্টিপল টাইপের জেনারেল ইন্টেলিজেন্স অ্যান্ড রিজনিং (৫০ প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), জেনারেল অ্যাওয়্যারনেস (৫০ প্রশ্ন, ৫০ নম্বর), ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যান্ড কম্প্রিহেনশন (১০০ প্রশ্ন, ১০০ নম্বর)। প্রতি ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ হারে নম্বর কাটা যাবে।

লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরা স্টেনোগ্রাফির স্কিল টেস্টে ডাক পাবেন। গ্রেড সি এবং গ্রেড ডি-র প্রার্থীদের যথাক্রমে মিনিটে ১০০ শব্দের গতিতে ইংরেজি বা ৮০ শব্দের গতিতে হিন্দিতে ১০ মিনিট ডিকটেশন নিতে হবে। তারপর ওই ডিকটেশনটি কম্পিউটারে গ্রেড ডি পদের ক্ষেত্রে ইংরেজি/হিন্দিতে যথাক্রমে ৫০ মিনিট ও ৬৫ মিনিটে এবং গ্রেড সি পদের ক্ষেত্রে ইংরেজি/হিন্দিতে যথাক্রমে ৪০ মিনিট এবং ৫৫ মিনিটে টাইপ করতে হবে। দরখাস্তে স্টেনোগ্রাফি টেস্টের মাধ্যম (ইংরেজি/হিন্দি) উল্লেখ করতে হবে। স্কিল টেস্টে পাশ করলে কেবল লিখিত পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর অনুযায়ী চূড়ান্ত মেধাতালিকা ঘোষিত হবে। অনলাইন পরীক্ষার জন্য অ্যাডমিট কার্ড সময়মতো ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করা যাবে, আলাদা করে কাউকে পাঠানো হবে না।

পরীক্ষাকেন্দ্র: পূর্বাঞ্চলের অর্থাৎ পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা, ঝাড়খণ্ড, সিকিম ও আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের প্রার্থীদের জন্য পরীক্ষাকেন্দ্র হবে এইসব জায়গায় (ব্র্যাকেটে কোড নম্বর): Kolkata (4410), Siliguri (4415), Gangtok (4001), Ranchi (4205), Bhubaneshwar (4604), Cuttack (4605), Sambalpur (4609), Port Blair (4802)।

পূর্বাঞ্চলের অফিসের ঠিকানা: Regional Director (ER), Staff Selection Commission, 1st MSO Building, (8th Floor), 234/4, Acharya Jagadish Chandra Bose Road, Kolkata, West Bengal-700020. ওয়েবসাইট: www.sscer.org    

আবেদনের ফি: আবেদনের ফি ১০০ টাকা। ভিম ইউপিআই, নেট ব্যাঙ্কিং, ভিসা কার্ড, মাস্টার কার্ড, ম্যাস্ট্রো, রুপে ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড অথবা এসবিআই চালানের মাধ্যমে স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়ার যে-কোনো শাখায় নগদে টাকা দেওয়া যাবে। তপশিলি জাতি/ উপজাতি, শারীরিক প্রতিবন্ধী, প্রাক্তন সেনাকর্মী ও মহিলা প্রার্থীদের আবেদনের ফি দিতে হবে না।

আবেদনের পদ্ধতিhttp://ssc.nic.in ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইন আবেদন করতে হবে। প্রথমে অনলাইন রেজিস্ট্রেশ করতে হবে, তারপর ইউজার নেম (ইমেল আইডি) ও সেই রেজিস্ট্রেশনের পাসওয়ার্ড দিয়ে আবার ঢুকে ‘অ্যাপ্লাই’ লিঙ্কে Stenographer Grade ‘C’ & ‘D’ Examination 2019-এ আবদন করতে হবে। এককালীন রেজিস্ট্রেশনের পদ্ধতি সম্পর্কে আমাদের আলোচনাও দেখে নিতে পারেন (http://jibikadishari.co.in/?p=6634) আগে রেজিস্ট্রেশন করা থাকলে নতুন করে রেজিস্ট্রেশন করতে হয় না। অনলাইন আবেদন করার আগে আবেদনের খুঁটিনাটি ও ফর্ম ফিলাপের পদ্ধতি সম্পর্কে জেনে নিতে পারবেন ওয়েবসাইটেই। দরখাস্তে আপলোড করার জন্য সাদা কাগজে কালো কালিতে করা নিজের স্বাভাবিক সই ও সম্প্রতি তোলা পাসপোর্ট মাপের রঙিন ছবির জেপেগ ফরম্যাটে স্ক্যান করা ইমেজ তৈরি রাখতে হবে, ছবি হতে হবে ২০-৫০ কেবির মধ্যে, মাপ চওড়ায় ৩.৫, উচ্চতায় ৪.৫ সেমি। স্বাক্ষর ১০-২০ কেবির মধ্যে, মাপ চওড়ায় ৩.৫, উচ্চতায় ৩ সেমি। আধার কার্ড বা তার জন্য রেজিস্ট্রেশনের নম্বর না থাকলে বাঁহাতের বুড়ো আঙুলের (না থাকলে ডানহাতের বুড়ো আঙুলের, তাও না থাকলে বাঁ/না থাকলে ডান পায়ের বুড়ো আঙুলের, মাপ চওড়ায় ৩, লম্বায় ৩ সেমি) ছাপও স্ক্যান করে রাখতে হবে।  অনলাইন আবেদন করার সময় ছবি ও স্বাক্ষর নির্দিষ্ট স্থানে আপলোড করতে হবে।

অনলাইন আবেদন করা যাবে আমাগী ১৮ অক্টোবর বিকাল ৫টা পর্যন্ত। দরখাস্তে উল্লেখের জন্য প্রার্থীর ক্যাটেগরি, পাশ করা পরীক্ষা, সেই পরীক্ষার বিষয় ইত্যাদির কোড নম্বর সহ অন্যান্য প্রাসঙ্গিক তথ্য জানা যাবে উপরোক্ত ওয়েবসাইটে, বা সরাসরি এই লিঙ্কে: https://ssc.nic.in/SSCFileServer/PortalManagement/UploadedFiles/notice_Steno_17092019.pdf

গুরুত্বপূর্ণ তারিখ: অনলাইন আবেদন করা যাবে আগামী ১৮ অক্টোবর বিকাল ৫টা পর্যন্ত। অনলাইন ফি দেওয়া যাবে আগামী ২০ অক্টোবর বিকাল ৫টা পর্যন্ত এবং এঅফলাইন চালানও ডাউনলোড করা যাবে আগামী ২০ অক্টোবর বিকেল ৫টা পর্যন্ত। চালানের মাধ্যমে ব্যাঙ্কে কাজের সময়সীমার মধ্যে ফি দেওয়া যাবে আগামী ২২ অক্টোবর পর্যন্ত।