fbpx

রাষ্ট্রীয় প্রযুক্তি গবেষণায় ১২৭ টেকনিক্যাল অ্যাসিঃ

ভারত সরকারের ন্যাশনাল টেকনিক্যাল রিসার্চ অর্গানাইজেশনে ইলেক্ট্রনিক্স ও কম্পিউটার সায়েন্স শাখায় ১২৭ জন টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট নিয়োগ করা হবে। প্রার্থী বাছাই করা হবে এনটিআরও টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট এগজামিনেশন ২০১৯-এর মাধ্যমে। অনলাইন আবেদন করা যাবে ৪ এপ্রিল ২০১৯ বিকাল ৫টা পর্যন্ত।

শূন্যপদ: ইলেক্ট্রনিক্স: ৫২ (অসংরক্ষিত ২০, ইডব্লুএস অর্থাৎ অর্থনৈতিক ভাবে দুর্বলতর শ্রেণির জন্য ৯, তপশিলি জাতি ৫, তপশিলি উপজাতি ৩, ওবিসি ১৫)। এইসবের মধ্যে ১টি শারীরিক প্রতিবন্ধীদের জন্য সংরক্ষিত। কম্পিউটার সায়েন্স: ৭৫ (অসংরক্ষিত ২৮, ইডব্লুএস ১৩, তপশিলি জাতি ৭, তপশিলি উপজাতি ৫)। এইসবের মধ্যে ২টি শারীরিক প্রতিবন্ধীদের জন্য সংরক্ষিত।

যোগ্যতা: ইলেক্ট্রনিক্স: ১) সায়েন্সে ব্যাচেলর ডিগ্রি সঙ্গে ম্যাথমেটিক্স বা ফিজিক্স একটি বিষয় হিসেবে থাকতে হবে। অথবা ইলেক্ট্রনিক্স/ কমিউনিকেশন/ ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন/ টেলিকমিউনিকেশন/ ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশনে তিন বছরের ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং বা টেকনোলজি। অথবা ইলেক্ট্রনিক্স/ কমিউনিকেশন/ ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন/ টেলিকমিউনিকেশন/ ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশনে ডিপ্লোমা/ টেকনিক্যাল দক্ষতার সার্টিফিকেট। এবং ২) কম্পিউটারে কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

কম্পিউটার সায়েন্স: ১) সায়েন্সে ব্যাচেলর ডিগ্রি সঙ্গে ম্যাথমেটিক্স বা ফিজিক্স একটি বিষয় হিসেবে থাকতে হবে। অথবা কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশনে ব্যাচেলর ডিগ্রি। অথবা কম্পিউটার/ কম্পিউটার সায়েন্স/ কম্পিউটার টেকনোলজি/ কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি/ ইনফরমেশন টেকনোলজিতে তিন বছরের ইঞ্জিনিয়ারিং/ টেকানোলজি ব্যাচেলর ডিগ্রি। অথবা কম্পিউটার/ কম্পিউটার সায়েন্স/ কম্পিউটার টেকনোলজি/ কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি/ ইনফরমেশন টেকনোলজিতে ডিপ্লোমা/ টেকিনক্যাল দক্ষতার সার্টিফিকেট। এবং ২) কম্পিউটারে কাজ চালানোর মতো জ্ঞান থাকতে হবে।

বয়সসীমা: বয়সের ঊর্ধ্বসীমা ৩০ বছর। সংরক্ষিত শ্রেণির প্রার্থীরা নিয়ম অনুযায়ী বয়সের ঊর্ধ্বসীমায় ছাড় পাবেন।

বেতনক্রম: মূল বেতন ৩৫৪০০-১১২৪০০ টাকা। সঙ্গে অন্যান্য ভাতা।

প্রার্থী বাছাই পদ্ধতি: কম্পিউটার ভিত্তিক পরীক্ষার মাধ্যমে প্রার্থী বাছাই করা হবে। পরীক্ষা হবে দুটি পর্যায়ে— টিয়ার ওয়ান ও টিয়ার টু। টিয়ার ওয়ানে ১০০টি অবজেক্টিভ মাল্টিপল চয়েস টাইপের প্রশ্ন থাকবে জেনারেল সায়েন্স, কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স, কোয়ান্টিটেটিভ অ্যাপ্টিটিউড অ্যান্ড রিজনিং, সংশ্লিষ্ট বিষয়ের উপর। মোট ৪০০ নম্বরের পরীক্ষা, সময় দু ঘণ্টা। নেগেটিভ মার্কিং থাকবে। টিয়ার ওয়ান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে টিয়ার টু পরীক্ষা দিতে পারবেন। টিয়ার ওয়ান পরীক্ষা হবে ২৮ এপ্রিল ২০১৯ এবং টিয়ার টু হবে আগামী ১৮ ও ১৯ মে।

পরীক্ষাকেন্দ্র: কলকাতা, ভুবনেশ্বর, রাঁচি, নয়ডা, নয়া দিল্লি, জয়পুর, মোহালি/ চণ্ডীগড়, গুয়াহাটি, লক্ষ্ণৌ, পুণে, বেঙ্গালুরু, চেন্নাই, তিরুবনন্তপুরম/ কোচি, হায়দরাবদ, বিজয়ওয়াড়া।

আবেদনের পদ্ধতি: http://ntrorectt.in ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইন আবেদন করতে হবে। বৈধ ইমেল আইডি ও মোবাইল নম্বর থাকতে হবে। অনলাইন আবেদন করার আগে ছবি, স্বাক্ষর ও যাবতীয় প্রমাণপত্রাদি স্ক্যান করে রাখতে হবে, অনলাইন আবেদন করার সময় তা নির্দিষ্ট স্থানে আপলোড করতে হবে। সম্প্রতি তোলা পাসপোর্ট মাপের রঙিন ছবি হতে হবে (মাপ ২০-৪০ কেবির মধ্যে)। স্বাক্ষরের মাপ ১০-২০ কেবির মধ্যে। যাবতীয় প্রমাণপত্রাদির এক-একটির মাপ হতে হবে ১২০-২০০ কেবির মধ্যে। অন্যান্য প্রাসঙ্গিক তথ্য জানা যাবে উপরোক্ত ওয়েবসাইট থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *