fbpx

অ্যাকচুয়ারিয়াল সায়েন্স পড়ে আর্থিক, বীমা কোম্পানিগুলিতে বাড়ছে কাজের সুযোগ

অ্যাকচুয়ারি কী ?

ইনশিওরেন্স, পেনশন, প্রপার্টি সংক্রান্ত সংস্থাগুলির সঙ্গে সর্বক্ষণের জন্য জড়িয়ে রয়েছে আর্থিক রেখাচিত্র ওঠানামা, শেয়ার বাজারে প্রতিযোগিতা এবং অনিশ্চয়তা। যেখানে আর্থিক বাজারের প্রতি সুনির্দিষ্ট পর্যবেক্ষণ এবং সঠিক ম্যাথমেটিক্যাল তথা স্ট্যাটিস্টিক্যাল পদ্ধতিকে কাজে লাগানোর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এর জন্য প্রয়োজন দক্ষ আ্যকচুয়ারির। আ্যকচুয়ারিয়াল সায়েন্স নিয়ে পড়াশুনা করে বিমা, প্রভিডেন্ট ফান্ড প্রভৃতি আর্থিক সংস্থাগুলিতে কাজের সুযোগ তৈরি হয়।

অ্যাকচুয়ারিয়াল সায়েন্স বলতে কি বোঝায় ?

ম্যাথমেটিক্স, ফিনান্স, প্রব্যাবিলিটি, স্ট্যাটিস্টিক্স, ইকনমিক্স, ফিনান্সিয়াল ইকনমিক্স এবং কম্পিউটার প্রোগ্রামিং এই সবকিছু নিয়ে তৈরি হয়েছে অ্যাকচুয়ারিয়াল সায়েন্স। বিভিন্ন আর্থিক সংস্থা, ইনভেস্টমেন্ট ব্যাঙ্ক, রিটায়ারমেন্ট ফান্ডস বা বিমা সংস্থাগুলির ভবিষ্যতের পরিকল্পনা, তা রূপায়ণ এবং পরবর্তীকালে তা উন্নত করার জন্য অ্যাকচুয়ারিয়াল সায়েন্সকে ব্যবহার করা হয়। জীবন বিমা, স্বাস্থ্য বিমা, সাধারণ বিমা বা যানবাহন বিমা সবক্ষেত্রেই এই বিষয়ের প্রভাব রয়েছে। এই বিষয়ের কোর্সের মধ্যে অ্যালজেবরা, ম্যাথমেটিক্যাল নোটেশন- টার্মিনোলজি-মেথডস, ভেক্টরস, ম্যাট্রিক্স, নিউমেরিক্যাল মেথডস, ডিফারেনসিয়েশন, ইন্টিগ্রেশন এবং পারমুডেশান -কম্বিনেশন, প্রোব্যাবিলিটি, স্ট্যাটিস্টিক্যাল ডায়াগ্রাম, কোরিলেশনস, রিগ্রেশন, ডিস্ট্রিবিউশন প্রভতি বিষয় রয়েছে। ম্যাথমেটিক্যাল এই সমস্ত বিষয়ের পাশপাশি বিভিন্ন ধরনের বিমা, রিস্ক ম্যানেজমেন্ট, পেনশন, কর্মচারীদের প্রদেয় অন্যান্য সুযোগ- বিজনেস ও ফিনান্সিয়াল ইকনমিক্স সম্বন্ধেও দক্ষ হতে হয়। কোর্সের শেষের দিকে হেলথ অ্যান্ড কেয়ার বা লাইফ ইনশিওরেন্স বা জেনারেল ইনশিওরেন্স বা পেনশন যে-কোনও একটি বিষয়ে স্পেশ্যালাইজ করা যায়।

যোগ্যতা কেমন লাগে ?

আন্ডারগ্র‌্যাজুয়েট স্তরে এই ধরনের কোর্স করার জন্য সাধারণত ১০+ ২ বা সমতুল যোগ্যতা চাওয়া হয়। উচ্চমাধ্যমিক পাঠক্রমে অঙ্ক এবং ইংলিশ বিষয় থাকতে হবে। ম্যাথমেটিক্স, স্ট্যাটিস্টিক্স, ইকনমিক্স, কম্পিউটার সায়েন্স, ইঞ্জিনিয়ারিং, এমবিএ (ফিন্যান্স) নিয়ে গ্র‌্যাজুয়েট বা পোস্ট গ্র‌্যাজুয়েট ডিগ্রির প্রয়োজন হয়। প্রতি বছর জুন এবং ডিসেম্বর মাসে অ্যাকচুয়ারিয়াল কমন এন্ট্রান্স টেস্ট হয়। অ্যাকচুয়ারি এন্ট্রান্স টেস্ট উত্তীর্ণ হওয়ার মাধ্যমে ছাত্র- অ্যাকচুয়ারিয়াল সোসাইটি অব ইন্ডিয়ার সদস্য হওয়ার সুযোগ পাবেন। অ্যাকচুয়ারিয়াল সোসাইটিতে ১৫টি আলাদা বিষয় নিয়ে পড়াশুনার সুযোগ রয়েছে। এর মধ্যে কয়েকটি বিষয়ে উত্তীর্ণ হলে আর্থিক সংস্থায় কাজ করার সুযোগ তৈরি হয়। তবে অ্যাকচুয়ারি হওয়ার জন্য উত্তীর্ণ হতে হবে সব কয়টি বিষয়ে।

কোথায় পড়ানো হয় ?

আ্যকচুরিয়াল ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া, মুম্বাই- এর পাশাপাশি ভারতের একাধিক প্রতিষ্ঠান ও বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যাকচুরিয়্যাল সায়েন্স সম্পর্কে পড়ানো হয়ে থাকে। কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়, ইনশিওরেন্স ইনস্টিটিউট অব মুম্বই, আলিগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব মুম্বই, ইউনিভার্সিটি অব পুণে, ইনস্টিটিউট অব ইনশিওরেন্স অ্যান্ড রিস্ক ম্যানেজমেন্ট হায়দ্রাবাদ এরকম বহু প্রতিষ্ঠানে এই কোর্স করানো হয়ে থাকে। অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানেই অবশ্য পোস্ট গ্র‌্যাজুয়েশন ডিপ্লোমা কোর্স করানো হয়।

কি কাজ করতে হয় ?

আর্থিক সংস্থা বা বিমা কোম্পানিগুলিতে নতুন নীতি বা বিমা প্রবর্তন, তার বিস্তার বা কোম্পানির মুনাফার কথা মাথায় রেখে আ্যকচুয়ারিদের কাজ করতে হয়। নতুন প্রোডাক্ট আনা এবং তার দাম সম্পর্কে ধারণা, বিমা সম্পর্কে সঠিক বাজার বা কাস্টমার নির্ধারণ, ইনশিওরেন্স প্রোডাক্টের উপর নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠানের আর্থিক  ক্ষতির পরিমাণকে নিয়ন্ত্রণে আনা, কোম্পানির মুনাফা ও ব্যবসা বৃদ্ধি সম্পর্কে সঠিক পথ দেখানো, ইনশিওরেন্স কোম্পানির সচ্ছলতার দিকে নজর দেওয়া প্রভতি নানা বিষয়ের দিকে খেয়াল রাখতে হতে পরে অ্যাকচুয়ারিদের।

 

 

Actuarial Science, Actuarial Science Job

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *