fbpx

আর্মিতে ৪০ ইঞ্জিনিয়ার

আর্মি টেকনিক্যাল গ্র্যাজুয়েট কোর্স (টিজিসি-১২৮) (জানুয়ারি ২০১৯)-তে ট্রেনিং দিয়ে ৪০ জন অফিসার নিয়োগ করবে ইন্ডিয়ান আর্মি। নিয়োগ হবে পার্মানেন্ট সার্ভিস কমিশনে।  অবিবাহিত/ বিবাহিত পুরুষ ইঞ্জিনিয়ার গ্র্যাজুয়েটরাই নিচের মতো যোগ্যতা থাকলে আবেদন করতে পারবেন।

শূন্যপদের বিন্যাস: (১) সিভিল: ১০, (২) আর্কিটেকচার: ১, (৩) মেকানিক্যাল: ৪, (৪) ইলেক্ট্রিক্যাল/ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স: ৫, (৫) কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং/ টেকনোলজি/ ইনফরমেশন টেকনোলজি/এমএসসি (কম্পিউটার সায়েন্স): ৬, (৬) ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড টেলিকম/ টেলিকমিউনিকেশন/ ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন/ স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন: ৭, (৭)ইলেক্ট্রনিক্স ২, (৮) মেটালার্জিক্যাল ২, (৯) ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড ইন্সট্রুমেন্টেশন/ ইন্সট্রুমেন্টেশন ২, (১০) মাইক্রোইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড মাইক্রোওয়েভ ১।

বয়সসীমা: ১ জানুয়ারি, ২০১৯ তারিখে বয়স হতে হবে ২০ থেকে ২৭ (অর্থাৎ জন্ম তারিখ ২ জানুয়ারি, ১৯৯২ থেকে ১ জানুয়ারি, ১৯৯৯)-এর মধ্যে।

শিক্ষাগত যোগ্যতা: সংশ্লিষ্ট শাখায় ইঞ্জিনিয়ারিং গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি। যাঁরা চূড়ান্ত বর্ষে পড়ছেন বা যাঁরা পরীক্ষা দিয়েছেন বা যাঁরা পরীক্ষা দেবেন তাঁরাও শর্তসাপেক্ষে আবেদন করতে পারবেন। তবে তাঁদের ক্ষেত্রে চূড়ান্ত বর্ষের সমস্ত পরীক্ষা যেমন, লিখিত পরীক্ষা, ব্যাবহারিক পরীক্ষা, ভাইভা, প্রোজেক্ট, ব্যাকলগ সবকিছু ১ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখের মধ্যে শেষ করে থাকতে হবে এবং ট্রেনিং শুরুর ১২ সপ্তাহের মধ্যে রেজাল্ট দাখিল করতে হবে।

ট্রেনিং: পুরোপুরি সরকারি খরচে ট্রেনিং চলবে ১ বছর। ট্রেনিং হবে ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমি, দেরাদুনে। ট্রেনিং মাঝখানে ছেড়ে দিলে সপ্তাহে ১০২৪৭ টাকা হারে ফেরৎ দিতে হবে। ট্রেনিং চলাকালে বিয়ে করলে বরখাস্ত করা হবে এবং সেক্ষেত্রেও ওইভাবে টাকা ফেরৎ দিতে হবে।

বেতনক্রম: কমিশন্ড হলে প্রথমে লেফটেন্যান্ট র‍্যাঙ্কে বেতন হবে পে স্কেল ১০ অনুযায়ী প্রতিমাসে ৫৬১০০-১৭৭৫০০ টাকার মূল বেতনক্রমে। পরে পদোন্নতি হলে ক্যাপ্টেন র‍্যাঙ্কে পে স্কেল ১০বি অনুযায়ী মূল বেতনক্রম ৬১৩০০-১৯৩৯০০ টাকা। অন্যা নানা ভাতা ও সুযোগ-সুবিধাও আছে। এইভাবে ক্রমশ মেজর, লেফটেন্যান্ট কর্নেল, কর্নেল, ব্রিগেডিয়ার, মেজর জেনারেল, লেফটেন্যান্ট জেনারেল এইচএজি, ভিসিওএএস ও সিওএস র‍্যাঙ্ক পর্যন্ত ওঠা যায়।

শারীরিক মাপজোক: প্রার্থীকে শারীরিক ও মানসিক ভাবে সুস্থ হতে হবে। ভালো স্বাস্থ্য থাকতে হবে। উচ্চতা অন্তত ১৫৭.৫ সেমি ও উচ্চতার অনুপাতে ওজন হতে হবে। উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রার্থীরা উচ্চতায় ৫ সেমি ছাড় পাবেন। শারীরিক যোগ্যতার ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য পাবেন ওয়েবসাইটে।

নির্বাচন পদ্ধতি: দরখাস্তের শিক্ষাগত যোগ্যতার ভিত্তিতে বাছাই করা প্রার্থীদের ইন্টারভিউয়ের জন্য ডাকা হবে। আবেদনকারীদের মেধার উপর ভিত্তি করে কাট-অফ মার্কস ঠিক করা হবে। এলাহাবাদ, ভোপাল, কাপুরথালা এবং ব্যাঙ্গালুরুতে সাইকোলজিক্যাল টেস্ট, গ্রুপ টেস্ট ও ইন্টাভিউ হবে। নির্বাচিত প্রার্থীদের কললেটার পাঠানো হবে ইমেলে। পাঁচ দিন ধরে ইন্টারভিউ চলবে। সেইমতো নিজখরচে থাকা-খাওয়ার জন্য তৈরি হয়ে যেতে হবে। প্রথমে স্টেজ-ওয়ানে এক দিন ও তাতে সফল হলে স্টেজ-টুতে চারদিন। সাইকোলজিক্যাল অ্যাপ্টিটিউডের মাধ্যমে স্টেজ-ওয়ানে প্রার্থী বাছাই হবে। এই পর্বে উত্তীর্ণ না হলে প্রার্থীকে সেই দিনই ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হবে। বাছাই করা প্রার্থীদের স্টেজ-টু-এর ইন্টারভিউ হবে। সেই সঙ্গে প্রার্থীদের মেডিক্যাল পরীক্ষা হবে। চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হলে ট্রেনিং দেওয়া হবে। ট্রেনিং শেষে ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি দেওয়া হবে। ট্রেনিংয়ের বইপত্র সহ সমস্ত খরচ সরকার বহন করবে।

আবেদন পদ্ধতি: আবেদন করতে হবে অনলাইনে। www.joinindianarmy.nic.in ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করা যাবে। আবেদন করার আগে সমস্ত নিয়মাবলি বিস্তারিত পড়ে নেবেন। সঠিক ভাবে পূরণ করা আবেদন পত্র সাবমিট করার পর একটি রোল নম্বর পাবেন। সেটি নোট করে নেবেন। আবেদন জমা দেওয়ার পর তার দুকপি প্রিন্ট-আউট নেবেন। এককপি প্রিন্ট-আউট সঠিক জায়গায় সই করবেন ও নির্দিষ্ট জায়গায় স্বপ্রত্যয়িত এককপি পাসপোর্ট মাপের ছবি সাঁটিয়ে দেবেন। দুকপি প্রিন্ট-আউট ও মাধ্যমিক থেকে শুরু করে সমস্ত স্তরের শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট, ডিগ্রি, মার্কশিট (আনুষঙ্গিক আরও কিছু সার্টিফিকেট, ওয়েবসাইটে জানতে পারবেন)— এইসব মূল প্রমাণপত্র ও সেগুলির দুকপি করে স্বপ্রত্যয়িত ফটোকপি পরীক্ষা তথা ইন্টারভিউয়ের সময় নিয়ে যেতে হবে। প্রিন্ট-আউটের একটি কপি প্রমাণপত্র হিসাবে প্রার্থীকে ফিরিয়ে দেওয়া হবে।

অনলাইনে আবেদন করা যাবে ১৬ মে, ২০১৮ বেলা ১২টা পর্যন্ত। সমস্ত ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে উপরের ওয়েবসাইটে।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *