ভারত পরমাণু শক্তিধর দেশ হয়েছিল ১৮ মে

ভারত প্রথম পারমাণবিক পরীক্ষা নিরীক্ষা শুরু করেছিল ১৯৪৪ সালে। ড হোমি জাহাঙ্গির ভাবার উদ্যোগে গড়ে উঠেছিল টাটা ইনস্টিটিউট অব ফান্ডামেন্টাল রিসার্চ। তৈরি হয়েছিল পারমাণবিক আইন। তারপর অনেক পরীক্ষানিরীক্ষার পরই প্রথম সফলতা এল ১৯৭৪ সালের ১৮ মে। রাজস্থানের পোখরানে ভারত সেদিন প্রথম পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষায় সফল হয়ে পৃথিবীর শক্তিধর পারমাণবিক দেশগুলির মধ্যে স্থান করে নিয়েছিল। পোখরান ১ নামে পরিচিত এই পারমাণিক শক্তিকেই ভারত সব সময় শান্তি ও উন্নয়নের জন্যই ব্যবহার করবে এই ভাবনায় এগিয়েছে। যার ফলে পোশাকি নাম পোখরান ১ হলেও পারমাণবিক শক্তি পরীক্ষার নাম রাখা হয়েছিল স্মাইলিং বুদ্ধ। যার মূল কারিগরদের একজন ছিলেন ভারতের প্রাক্তন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি বিজ্ঞানী আবদুল কালাম।এই পরমাণু বোমার শক্তি ছিল  ৮ কিলো টন।এই গবেষণার দলে প্রধান ছিলেন ছিলেন ড. রাজা রামান্না। তাঁর সঙ্গে ছিলেন পিকে আইয়েঙ্গার, ডঃ রাজাগোপাল চিদাম্বরম, ডঃ নাগাপত্তিনাম শম্বশিব বেঙ্কটেশন, ডঃ আবদুল কালাম, ও ডঃ ওয়ামান দত্তাত্রেয় পটবর্ধন-এর মতো বিজ্ঞানী গবেষক। তাঁরা ছাড়াও আরও ৭৫ জনের বিজ্ঞানীর একটি দল। এর পরে ১৯৯৮ সালে ভারতের পোখরানে ১১ মে ও ১৩ মে পর-পর পারমাণবিক পরীক্ষার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পরীক্ষাটি করা হয়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *