fbpx

আর্মিতে সরাসরি নিয়োগ র‍্যালি শিলিগুড়িতে

সোলজার জেনারেল ডিউটি, সোলজার টেকনিক্যাল, সোলজার টেকনিক্যাল (অ্যাভিয়েশন/ অ্যামিউনিশন এগজামিনার), সোলজার নার্সিং অ্যাসিস্ট্যান্ট/ নার্সিং অ্যাসিস্ট্যান্ট (ভেটেরিনারি), সোলজার ক্লার্ক/ স্টোর কিপার টেকনিক্যাল, সোলজার ট্রেডসম্যান পদের জন্য সরাসরি র‍্যালির মাধ্যমে কয়েকশো অবিবাহিত তরুণকে নিয়োগ করবে ভারতীয় সেনাবাহিনী। শিলিগুড়ি আর্মি রিক্রুটিং অফিসের মাধ্যমে। কেবলমাত্র জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং, কালিম্পং, মালদা, আলিপুরদুয়ার, উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিণ দিনাজপুর এবং কোচবিহার জেলার প্রার্থীরাই এই র‍্যালিতে অংশ নিতে পারবেন। এই নিয়োগ র‍্যালি হবে শিলিগুড়ির বৈকুন্ঠপুর আর্মি গ্রাউন্ডে। র‍্যালি চলবে ২৬ অক্টোবর থেকে ৩ নভেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত। তার আগে অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ও আবেদন করতে হবে ১০ অক্টোবরের মধ্যে।

প্রয়োজনীয় শিক্ষাগত যোগ্যতা: সোলজার জেনারেল ডিউটি: ন্যূনতম ৪৫ শতাংশ নম্বর নিয়ে দশম শ্রেণি পাশ (প্রতিটি বিষয়ে ৩৩ শতাংশ করে নম্বর থাকতে হবে)। সিবিএসই/ অন্যান্য বোর্ডের গ্রেডিং সিস্টেমের ক্ষেত্রে প্রতিটি বিষয়ে ‘ডি’ গ্রেড এবং মোট ‘সি২’ গ্রেড থাকতে হবে। বয়সসীমা: সাড়ে সতেরো থেকে একুশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৭ থেকে ১ এপ্রিল ২০০১)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

সোলজার টেকনিক্যাল: শিক্ষাগত যোগ্যতা: বিজ্ঞান শাখায় ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, অঙ্ক এবং ইংরেজি অন্যতম বিষয় হিসেবে নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক পাশ প্রার্থীরা মোট অন্তত ৫০ শতাংশ নম্বর পেয়ে থাকলে এই পদের যোগ্য (প্রতিটি বিষয়ে ৪০ শতাংশ করে নম্বর থাকতে হবে)। বয়সসীমা: সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৫ থেকে ১ এপ্রিল ২০০১)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

সোলজার টেকনিক্যাল (অ্যাভিয়েশন/অ্যামিউনিশন এগজামিনার): শিক্ষাগত যোগ্যতা: বিজ্ঞান শাখায় ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, অঙ্ক এবং ইংরেজি অন্যতম বিষয় হিসেবে নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক পাশ প্রার্থীরা অন্তত ৫০ শতাংশ নম্বর পেয়ে থাকলে এই পদে আবেদনের যোগ্য। এই বিষয়ের প্রতিটিতে অন্তত ৪০ শতাংশ করে নম্বর থাকতে হবে। মেকানিক্যাল/ ইলেক্ট্রিক্যাল/ ইলেক্ট্রনিক্স/ অটোমোবাইল/ কম্পিউটার সায়েন্সে তিন বছরের ডিপ্লোমা কোর্স পাশ হলেও যোগ্য। বয়সসীমা: সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৫ থেকে ১ এপ্রিল ২০০১)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

সোলজার নার্সিং অ্যাসিস্ট্যান্ট/ নার্সিং অ্যাসিস্ট্যান্ট ভেটেরেনারি: শিক্ষগত যোগ্যতা: ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, ইংরাজি ও বায়োলজি বিষয় নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক পাশ ছেলেরা মোট ৫০ শতাংশ পেয়ে থাকলে আর প্রতিটি বিষয়ে অন্তত ৪০ শতাংশ নম্বর থাকলে আবেদন করতে পারবেন। বটানি, জলজি, বায়োসায়েন্স বিষয়ে বিএসসি কোর্স পাশর হলেও আবেদন করতে পারেন। ডিগ্রি থাকলে উচ্চমাধ্যমিকের নম্বরের কোনো কড়াকড়ি নেই। বয়সসীমা: সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৫ থেকে ১ এপ্রিল ২০০১)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

সোলজার ক্লার্ক/ স্টোর কিপার টেকনিক্যাল: শিক্ষাগত যোগ্যতা: সায়েন্স/ আর্টস/ কমার্স শাখায় মোটের উপর অন্তত ৬০ শতাংশ নম্বর নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক পাশ হতে হবে। প্রতিটি বিষয়ে অন্তত ৫০ শতাংশ নম্বর থাকা চাই। মাধ্যমিক অথবা উচ্চমাধ্যমিকে প্রতিটি বিষয়ে ৫০ শতাংশ নম্বর সহ ইংরেজি সঙ্গে অঙ্ক/ অ্যাকাউন্ট্যান্সি/ বুক কিপিংয়ের মধ্যে যে-কোনো একটি আবশ্যিক বিষয় হিসেবে থাকতে হবে। বয়সসীমা: সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৫ থেকে ১ এপ্রিল ২০০১)।  দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৭ সেমি ও ৮২ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৫০ কেজি।

সোলজার ট্রেডসম্যান: শিক্ষাগত যোগ্যতা: দশম শ্রেণি বা আইটিআই পাশ (মেস কিপার, হাউস কিপিং ছাড়া, তাদের ক্ষেত্রে অষ্টম শ্রেণি পাশ)। বয়সসীমা: সাড়ে সতেরো থেকে তেইশ বছরের মধ্যে (জন্মতারিখ ১ অক্টোবর ১৯৯৫ থেকে ১ এপ্রিল ২০০১)। দৈহিক মাপজোক: উচ্চতা অন্তত ১৬৯ সেমি, বুকের ছাতি না ফুলিয়ে ও ফুলিয়ে যথাক্রমে ৭৬ সেমি ও ৮১ সেমি। ওজন ন্যূনতম ৪৮ কেজি।

র‍্যালি কেন্দ্রের ঠিকানা: বৈকুণ্ঠপুর আর্মি গ্রাউন্ড, সালুপাড়া, শিলিগুড়ি (সেবক মিলিটারি স্টেশন)। র‍্যালি শুরু হবে আগামী ২৬ অক্টোবর থেকে, চলবে ৩ নভেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত।

শারীরিক সক্ষমতার পরীক্ষা: দৈহিক সক্ষমতার পরীক্ষায় কৃতিত্বের ভিত্তিতে দুটি ভাগ হবে। গ্রুপ-ওয়ানের মধ্যে পড়বেন তাঁরাই যাঁরা ১.৬ কিমি দৌড় ৫ মিনিট ৩০ সেকেন্ড সম্পূর্ণ করে ৬০ নম্বর, ১০টা বিম পুল-আপ দিয়ে ৪০ নম্বর বা ৯টা দিয়ে ৩৩ নম্বর বা ৮টা দিয়ে ২৭ নম্বর পাবেন এবং জিগজ্যাগ ব্যালান্স ও ৯ ফুট লংজাম্পে (খাত) সফল হবেন। গ্রুপ-টুতে পড়বেন ১.৬ কিমি ৫ মিনিট ৩১ সেকেন্ড থেকে ৫ মিনিট ৪৫ সেকেন্ডে দৌড়ে ৪৮ নম্বর পাবেন, ৭টা বিম পুল-আপ দিয়ে ২১ নম্বর বা ৬টা দিয়ে ১৬ নম্বর পাবেন এবং জিগজ্যাগ ব্যালান্স ও ৯ ফুট লংজাম্পে (খাত) সফল হবেন।

দৈহিক সক্ষমতার পরীক্ষায় সফল হলে মেডিকেল টেস্ট ও লিখিত পরীক্ষা।

আবেদনের পদ্ধতি: র‍্যালিতে যোগ দেওয়ার জন্য www.joinindianarmy.nic.in ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইনে নাম লেখাতে অর্থাৎ রেজিস্টার করতে হবে নিজের ইমেল আইডি, মোবাইল নম্বর ইত্যাদি দিয়ে, ১০ অক্টোবর ২০১৮ তারিখের মধ্যে। আধার কার্ড থাকতে হবে।

র‍্যালির ১৫ দিন আগে থেকে ওয়েবসাইট বা ইমেলেই অ্যাডমিট কার্ড পাওয়া যাবে। এ-ফোর মাপের কাগজে অ্যাডমিট কার্ডের ২টি প্রিন্ট-আউট নিয়ে রাখতে হবে। আপনার জন্য নির্ধারিত তারিখে র‍্যালিতে যেতে পারবেন, ভোর সাড়ে পাঁচটা থেকে ৭টার মধ্যে। কাছাকাছি এলাকায় ৩-৪ দিন থাকতে হতে পারে, সেভাবে তৈরি থাকতে হবে।

প্রার্থী বাছাইয়ের দিন যেসব নথির মূল এবং প্রত্যয়িত (গেজেটেড অফিসার বা সমতুল কাউকে দিয়ে) প্রতিলিপি (দুটি করে কপি) সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে তা হল: ১) মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক, গ্র্যাজুয়েশন ও উচ্চতর কোনো যোগ্যতা থাকলে তার রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট, অ্যাডমিট কার্ড, রেজাল্ট ও বোর্ড সার্টিফিকেট। ২) গ্রাম প্রধান, সরপঞ্চ বা চেয়ারম্যানরে অফিস থেকে গোল সীলমোহরের ছাপ দেওয়া ক্যারেক্টার সার্টিফিকেট (৬ মাসের পুরানো হলে চলবে না)। সার্টিফিকেটে ছবি থাকতে হবে এবং প্রার্থীর ২১ বছরের কম হলে ‘হি ইজ আনম্যারেড’ কথাটিও সার্টিফিকেটে লেখা থাকা চাই। ৩) মাধ্যমিক অনুত্তীর্ণদের ক্ষেত্রে ডিস্ট্রিক্ট ইনস্পেক্টর অব স্কুল ও ডিস্ট্রিক্ট এডুকেশন অফিসারকে দিয়ে কাউন্টার সাইন করানো ‘স্কুল লিভিং’ বা ‘স্কুল ট্রান্সফার সার্টিফিকেট’। ৪) অবাঙালী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে জেলাশাসক, অতিরিক্ত জেলাশাসক বা এসডিওর ইস্যু করা বাসিন্দা/ নেটিভিটি সার্টিফিকেট। ৫) অন্তত ১ বছরের পুরানো স্থায়ী বাসিন্দা হওয়ার প্রমাণপত্র হিসেবে জেলাশাসক/ অতিরিক্ত জেলা শাসক, এসডিএম, এসডিওর দেওয়া ‘পারমানেন্ট রেসিডেনশিয়াল অ্যান্ড ক্যারেকটার সার্টিফিকেট’ (সাটিফিকেটে প্রার্থীর প্রত্যয়িত করা ছবি এবং স্বাক্ষর থাকা চাই) সেই সঙ্গে সার্টিফিকেটের গোল শিলমোহরের ছাপ এমনভাবে মারতে হবে যাতে তার কিছু অংশ ফটোর ওপর এবং কিছুটা সার্টিফিকেটের উপর পড়ে)। তপশিলি উপজাতি প্রার্থীদের ক্ষেত্রে জেলাশাসক, এসডিএম, এসডিওর দেওয়া কাস্ট সার্টিফিকেট। ৬) তিন মাসের মধ্যে তোলা ২০ কপি পাসপোর্ট মাপের রঙিন ছবি ও সেটির নেগেটিভ। ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড সাদা হতে হবে। কম্পিউটার ফটো অথবা ডিজিট্যাল ফটো গ্রহণযোগ্য হবে না। ৭) এনসিসির ‘এ’, ‘বি’ ও ‘সি’ সার্টিফিকেট যদি থাকে। ৮) রাজ্য বা জাতীয় পর্যায়ের খেলাধূলায় গত ২ বছরের মধ্যে প্রথম বা দ্বিতীয় স্থানাধীকারী হলে তার সাটিফিকেট। ৯) প্রাক্তন সমরকর্মীদের ডিসচার্জ সার্টিফিকেট। ডিফেন্স সিকিউরিটি কোরের ক্ষেত্রে রি-এনরোলমেন্টের জন্য পাসপোর্ট মাপের ২০ কপি ফটো, পার্মানেন্ট রেসিডেনসিয়াল সার্টিফিকেট, সিভিল এডুকেশন ক্যারেক্টার ও সিঙ্গল ওয়াইফ সার্টিফিকেট, মেডিকেল টেস্ট রিপোর্ট এবং প্রতিটি সার্টিফিকেটের দুটি করে ফটোকপি সঙ্গে রাখতে হবে। র‍্যালি সংক্রান্ত কোনো জিজ্ঞাসা থাকলে ফোন করতে পারেন ০৩৫৩-২৫৯০০৪০ বা ৮১৭০০০৮৭৬০ নম্বরে। অন্যান্য প্রাসঙ্গিক তথ্য জানা যাবে উপরোক্ত ওয়েবসাইটে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *