ইউরোপার দামামা

327
0
UEFA
Courtesy: UEFA.Com

গত বছর কোভিড পরিস্থিতির ভয়াবহতার কারণে লন্ডভণ্ড হয়েছিল গোটা বিশ্ব। সে কারণে বন্ধ রাখা হয়েছিল ইউরোপের নামীদামি ফুটবল দেশগুলির ফুটবল টুর্নামেন্ট উয়েফা কাপ বা ইউরোপা।
ফুটবল প্রেমীদের কাছে ফুটবল বিশ্বকাপের পর সবচেয়ে প্রতীক্ষিত এই ইউরোপা ফুটবল টুর্নামেন্ট। এবার নানারকম নিয়মনিধি মেনে দর্শকসংখ্যা সীমাবদ্ধ রেখে শুধুমাত্র একটি দেশে না হয়ে এই প্রথম ১১টি ভিন্ন দেশের ভিন্ন মাঠে অনুষ্ঠিত হবে ফুটবলের এই মহাযজ্ঞ।
এই টুর্নামেন্টে খেলবে ১১টি দেশ। পাঁচটি ভাগে বিভক্ত হয়ে। ইংল্যান্ড, পর্তুগাল, ক্রোয়েশিয়া, স্কটল্যান্ড প্রভৃতি দেশের সঙ্গে-সঙ্গে হ্যারি কেন, লুকা মদ্রিচ, রাহিম স্টার্লিং, ভ্লাদিমির দারিদা, আন্দ্রে ক্রামারিচ প্রমুখ অসংখ্য উজ্জ্বল তারকা ফুটবলারের নাম ঘোরাফেরা করবে।
ইউরোপার পূর্ব নাম ছিল ইউরোপিয়ান নেশনস কাপ। এ বছর এই কাপের ৬০তম বর্ষ। ১৯৬০ সালে ফ্রান্সে প্রথম অনুষ্ঠিত হয়েছিল ইউরোপের দেশুলিকে নিয়ে এই বর্ণাঢ্য ফুটবল। সাধারণত চার বছর অন্তর ইউরোপা টুর্নামেন্ট হয়।
রোমের স্টেডিয়ো অলিম্পিকোতে মাত্র ২৫ হাজার দর্শক নিয়ে শুরু হল প্রথম ম্যাচ‌ তুরস্ক ও ইতালির মধ্যে। দিন-দিন জমে উঠবে এই টু্র্নামেন্ট লন্ডন, সেন্ট পিটার্সবাগ, বাকু, মিউনিখ, বুদাপেস্ট, বুখারেস্ট, কোপেন হেগেন, গ্লাসগো এবং সেভিলে।
১১ জুন থেকে ১১ জুলাই বিশ্ব জুড়ে লক্ষ-লক্ষ ফুটবলপ্রেমী বিভোর থাকবেন এই ইউরোপায়। ইউরোপার অফিশিয়াল গান হল, ‘উই আর দ্য পিপল’।
এই ইউরোপার ৬০ বছর পূর্তি উপলক্ষে গুগল ডুডুল এক ফুটবল মাঠের চারিপাশে বাড়িঘর খেলার সরঞ্জাম দিয়ে সাজিয়েছে।